চলতি মাসের ৩০ তারিখ থেকে শুরু হতে যাচ্ছে ক্রিকেটের সবথেকে বড় আসর বিশ্বকাপ। এবারের বিশ্বকাপটি অনুষ্ঠিত হবে ইংল্যান্ডে। তাই স্বভাবতই বলা যায় সারাবিশ্বের নজর থাকবে এবার ইংল্যান্ডের উপর। এরই মধ্যে বিশ্বকাপের আগে ত্রিদেশীয় সিরিজের টুর্নামেন্টটি জিতে দারুন আত্মবিশ্বাস নিয়ে ইংল্যান্ডে পারি জমিয়েছে বাংলাদেশ দল। টানা ছয়-ছয়বারের ব্যর্থতার পর প্রথম কোনো টুর্নামেন্টের শিরোপা জিতে আত্মবিশ্বাস নিয়েই যাচ্ছে বিশ্বকাপে। আর তাই আইসিসির দেওয়া সুযোগও তারা নিচ্ছে না।

অন্যদিকে, বিশ্বকাপের আগে নিজেদের ঝালিয়ে নিতে ইংল্যান্ডের মাটিতে ৫ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলে পাকিস্তান। তবে টানা ব্যর্থতা নিয়ে শুরু করতে যাচ্ছে বিশ্বকাপ। ব্যর্থ হলেও ভালো কিছু করার লক্ষ্যেই দলে পরিবর্তন এনেছে পাকিস্তান। ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জেতা দলটি সম্প্রতি স্বাগতিকদের কাছে ওয়ানডে সিরিজেও হয়েছে নাস্তানাবুদ। হারের পর হার দিয়ে বিশ্বকাপ প্রস্তুতি সারার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় ১৫ জনের চূড়ান্ত স্কোয়াডে পরিবর্তন আনে।

গতকাল দল থেকে বাদ পড়েছে জুনাইদ খান, ফাহিম আশরাফ ও আবিদ আলী। আর তাঁদের জায়গায় নেওয়া হয়েছে দুই পেসার ওয়াহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ আমির এবং ব্যাটসম্যান আসিফ আলীকে। আইসিসিও ২৩ মের আগে যখন-তখন দলে পরিবর্তন আনার সুযোগ উন্মুক্ত রেখেছিল সব দলের জন্যই। আর সেটিই কাজে লাগিয়েছে পাকিস্তান।

খেলোয়াড় পরিবর্তনের সুযোগ নিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডও (পিসিবি)। কিন্তু ত্রিদেশীয় সিরিজের সময় বাংলাদেশেরও একই সুযোগ নেওয়ার আলোচনা থাকলেও এখন সেখান থেকে সরে এসেছে তারা। লিস্টারের প্রস্তুতি শিবিরে তাই দলে কারো জায়গা নিয়ে অনিশ্চয়তাজনিত অস্থিরতাও নেই আর। যে কারণে নিশ্চিন্তে আছেন আবু জায়েদ রাহিও। ত্রিদেশীয় সিরিজে ওয়ানডে অভিষেকে তেমন কিছুই করতে না পারলেও আইরিশদের বিপক্ষে দলের শেষ গ্রুপ ম্যাচে ৫ উইকেট নিয়ে দলে পরিবর্তনের আলোচনায় পানিও ঢেলে দেন এই তরুণ ক্রিকেটার। ফলে ২৩ মের আগে পাকিস্তান দলে পরিবর্তন এলেও বাংলাদেশের ক্ষেত্রে সেই সম্ভাবনা নেই বলে নিশ্চিত করেছেন আকরাম খান।

বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি প্রধান বলেছেন, ‘আমাদের দলে কোনো পরিবর্তন আসছে না নিশ্চিত। এর পরে (২৩ মের পরে) আল্লাহ না করুক, কেউ ইনজুরিতে পড়লেই কেবল বিকল্প খেলোয়াড়ের দরকার পড়বে। সে ক্ষেত্রে আইসিসির টেকনিক্যাল কমিটির অনুমতি নিয়েই যা করার করতে হবে। তবে এখন পর্যন্ত যে সুযোগটি আছে (কোনো কারণ না দেখিয়েই খেলোয়াড় অদলবদলের), সেটি আমরা নিচ্ছি না। গত ১৬ এপ্রিল যে দলটি ঘোষণা করা হয়েছে, আমরা সেটি নিয়েই বিশ্বকাপে যাচ্ছি।’

তাই আত্মবিশ্বাস নিয়েই বিশ্বকাপে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আর আইসিসির দেওয়া সুযোগও তারা নিচ্ছে না।

মন্তব্য: