বাংলাদেশের বিপক্ষে মাঠে নামা অনিশ্চিত এই প্রোটিয়া ওপেনারের । ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম ম্যাচে জফরা আর্চারের দ্রুতগতির বাউন্সারে মাথায় আঘাত পেয়েছিলেন হাশিম আমলা।

ইংল্যান্ডের সঙ্গে ম্যাচের চতুর্থ ওভারে জফরা আর্চারের বিদ্যুৎ–গতির এক বাউন্সারে মাথায় আঘাত পান আমলা। সতর্কতা হিসেবে তৎক্ষণাৎ মাঠ ত্যাগ করেছিলেন আমলা। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বিশাল হারে বিশ্বকাপ শুরু হয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার। মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে এসেছে ওপেনার হাশিম আমলার চোটের সংবাদ।

শনিবার দলের সঙ্গে অনুশীলনে যোগ দেননি এই ওপেনার। প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে নাকাল হওয়া প্রোটিয়াদের দলের দুর্দশায় আবারও ইনিংসের শেষের দিকে মাঠে নেমেছিলেন আমলা, তবে ম্যাচে হার এড়ানো সম্ভব হয়নি। সেই চোট এখনো বেশ ভোগাচ্ছে তাঁকে।

জন্য বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচটি জয়ের ধারায় ফিরে আসার। তবে এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচের আগে আমলার চোট তাদের পরিকল্পনা নতুন করে ভাবাতে বাধ্য করবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। ম্যাচে আমলার খেলা নিয়ে শঙ্কা অবশ্য বাংলাদেশের জন্য খুব একটা স্বস্তি বয়ে আনবে না। আমলা যদি শেষ পর্যন্ত না খেলেন, তাঁর বদলে দলে আসবেন বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান ডেভিড মিলার। সে ক্ষেত্রে দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে কুইন্টন ডি ককের সঙ্গে ইনিংস উদ্বোধন করবেন ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিনে নামা এইডেন মার্করাম।

তবে শেষ পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকার নির্বাচকেরা অবশ্য ইনিংস উদ্বোধনের দায়িত্ব আমলাকেই বুঝিয়ে দিয়েছেন। তারুণ্য আর অভিজ্ঞতার মাঝে অভিজ্ঞতাকেই বেশি প্রাধান্য দিয়েছিলেন তাঁরা। এবারের বিশ্বকাপে হাশিম আমলা দক্ষিণ আফ্রিকার দলে সুযোগ পাবেন কি না, সেটি নিয়ে শঙ্কা ছিল অনেক। ফর্মটা মোটেও ভালো যাচ্ছিল না একসময় ধারাবাহিকতায় বিরাট কোহলির সঙ্গে পাল্লা দেওয়া এই ওপেনারের।

প্রস্তুতি ম্যাচে শ্রীলঙ্কা এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টানা দুই ফিফটি করে নির্বাচকদের আস্থার প্রতিদান দিতে একদমই ভুল করেননি। তাই বাংলাদেশের বিপক্ষে ম্যাচে যদি শেষ পর্যন্ত মাঠে না নামতে পারেন আমলা, সেটি কিছুটা হলেও ভোগাবে দক্ষিণ আফ্রিকাকে। ওদিকে ডেল স্টেইনও থাকছেন না চোটের কারণে।

যদিও চোট–সমস্যায় জর্জরিত বাংলাদেশও; দলের মূল দুই খেলোয়াড়ই হালকা চোট নিয়ে হয়তো মাঠে নামবেন। বেলা সাড়ে তিনটায় লন্ডনের কেনিংটন ওভালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে নিজেদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু করবে বাংলাদেশ।

মন্তব্য: