ওয়ানডেতে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দ্রুততম ফিফটির রেকর্ডটি এতদিন ধরে রেখেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনাল ম্যাচে মোহাম্মদ আশরাফুলের রেকর্ডটি একান্তই নিজের করে নিলেন মোসাদ্দেক হোসেন। বলা যেতে পারে তার ২৪ বলে ৫২ রানের দুর্দান্ত ইনিংসই বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক শিরোপা জয়ের মূল মন্ত্র। খেলা শেষে সংবাদমাধ্যমকে মোসাদ্দেক জানালেন, কীভাবে গড়লেন ইতিহাস।

প্রশ্নঃ লক্ষ্য যখন ২৪ ওভারে ২১০ রান, ড্রেসিংরুমে তখন কী আলোচনা হচ্ছিল?
মোসাদ্দেক হোসেনঃ যখন ফিল্ডিং শেষ করে এলাম, তখন মাশরাফি-মুশফিক-তামিম-রিয়াদ ভাই বলছিলেন, আমাদের যে ব্যাটিং সামর্থ্য আছে, পুরো টুর্নামেন্টে আমরা যেমন ব্যাটিং করেছি, যদি আমরা শেষ পর্যন্ত খেলতে পারি, তাহলে এই রান তাড়া করা সম্ভব।

প্রশ্নঃ যখন ক্রিজে নামেন তখন বাংলাদেশের দরকার ৫০ বলে ৬৭ রান। পরিস্থিতি ছিল একটু কঠিন। আপনার ভাবনায় তখন কী কাজ করছিল?
মোসাদ্দেক হোসেনঃ যখন ব্যাটিংয়ে যাই একটা বিষয়ই কাজ করছিল যে আমি ইতিবাচক ক্রিকেট খেলব। তখন পরিস্থিতি খুব একটা সহজ ছিল না। চেষ্টা করছিলাম যেমন বল হবে সে অনুযায়ী খেলব। আমি শুধু এটাই করেছি।

প্রশ্নঃ অ্যালেনের যে ওভারে ২৫ রান তুললেন, ওই ওভারে কী পরিকল্পনা ছিল?
মোসাদ্দেক হোসেনঃ ওই ওভারে যখন একটা ছক্কা হলো মনে হলো, এ ওভারে রান যতটা এগিয়ে নেওয়া যায়। ৩ ওভারে ২৭ রান দরকার ছিল। ওই ওভারটা আমরা টার্গেট করেছিলাম, রানটা এগিয়ে রাখব। ওই ওভারটাই টার্গেট করেছিলাম।’

প্রশ্নঃ প্রথম একটা ফাইনাল জিতল বাংলাদেশ। সেটির নায়ক আপনি। কেমন লাগছে সব মিলিয়ে?
মোসাদ্দেক হোসেনঃ এটা অনেক ভালো লাগার বিষয়, প্রথম একটা কাপ জিতেছি। সেটাও আবার বিদেশের মাটিতে, ভালো একটা দলের বিপক্ষে। সবচেয়ে বড় কথা, বিশ্বকাপের আগে ভালো একটা প্রস্তুতি হলো। ব্যাটিং, বোলিংয়ে এখানে যেভাবে ভালো খেলেছি, এভাবে খেলতে পারলে বিশ্বকাপে আশা করি ভালো একটা ফল পাব।

প্রশ্নঃ আজ যে ব্যাটিংটা করলেন, ব্যক্তিগত আত্মবিশ্বাস কতটা বাড়ল?
মোসাদ্দেক হোসেনঃ ওখানে যখন যাব, বিশ্বকাপে উইকেট আরও ভালো হবে। নিচের দিকে নেমে এ ধরনের ইনিংস যদি খেলতে পারি, দলের খুব কাজে দেবে। যদি সুযোগ পাই, নিজের খেলার চেষ্টা করব, যেটা দলকে কাজে দেবে।

প্রশ্নঃ জেতার পর দলের উচ্ছ্বাসটা বাধভাঙা হয়নি। সেটি অ্যালেনের ওই ওভারের কারণেই?
মোসাদ্দেক হোসেনঃ ওই ওভারের পর সবাই বুঝে গেছে ম্যাচের ফল কী হতে যাচ্ছে। ওই ওভারটাই টার্নিং পয়েন্ট ছিল আমাদের ম্যাচ জয়ে।

প্রশ্নঃ এই পারফরম্যান্স কি বিশ্বকাপে আপনাদের প্রতি প্রত্যাশা অনেক বাড়িয়ে দিল?
মোসাদ্দেক হোসেনঃ এখান থেকে ভালো আত্মবিশ্বাস নিয়ে যাচ্ছি বিশ্বকাপে। আশা করি ভালো একটা ফল পাব।

মন্তব্য: