দ্বাদশ বিশ্বকাপের উদ্ধোধনী আফ্রিকার বিপক্ষে বড় রান পেলো বাংলাদেশ । সাকিব ও মুশফিকের অর্ধশতকের সুবাদে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩৩০ রান তুলল বাংলাদেশ।

এদিন টসে হেরে ব্যাটিংয়ে উদ্ধোনী জুটিতেই বাংলাদেশকে ভালো সূচনা এনে দেন তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। ইনিংসের নবম ওভারে ব্যক্তিগত ১৬ রানে বিদায় নেন তামিম । এতে উদ্ধোধনী জুটিতে তার সঙ্গে সৌম্যর করা ৬০ রানের জুটির অবসান হয়।

তামিমের বিদায়ের ১৫ রানের ব্যবধানে ফেরেন সৌম্য। ৩০ বল থেকে ৪২ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে ক্রিস মরিসের বলে আউট হন তিনি। তৃতীয় উইকেটে বাংলাদেশের বড় রান পাওয়ার ভীত গড়ে দেন সাকিব ও মুশফিক।

তারা দুজনে গড়েন বিশ্বকাপে ইতিহাসে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ১৪২ রানের জুটি। দলীয় ২১৭ রানে ইমরান তাহির সাকিবকে ফিরিয়ে এই জুটির ইতি টানেন। ৮৪ বল থেকে ৮টি চার ও ১টি ছক্কায় ৭৫ রান করেন সাকিব।

সাকিবের বিদায়ের পর দলীয় স্কোর ২৫০ রানের মধ্যে ফিরে যান মিঠূন ও মুশফিক। প্রথমে মিঠুন তাহিরের বলে ২১ রান ও মুশফিক ৮০ বল থেকৈ ৭৮ রানের ইনিংস খেলে বিদায় নেন।

মুশফিকের বিদায়ের পর বাংলাদেশের হাতে ছিল ৮ ওভার। এই ওভার গুলোতে মোসাদ্দেক ও মাহমুদুল্লাহ ঝড় তোলেন। ৪৯তম ওভারের শেষ বলে মোসাদ্দেক ২০ বল থেকে ২৬ রান করে আউট হলেও অপরাজিত থাকেন মাহমুদুল্লাহ। ৩৩ বল থেকে ৩টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪৬ রানের ইনিংস খেলেন তিনি।

যার সুবাদে ৬ উইকেটে ৩৩০ রানের রানের চূড়ায় পৌঁছে যায় বাংলাদেশ। এটি শুধু বিশ্বকাপ আসরেই নয় বাংলাদেশের ওয়ানডে ক্রিকেট ইতিহাসের দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড।

আফ্রিকার হয়ে ফেললুকায়েও, তাহির ও মরিস ২টি করে উইকেট নেন।

মন্তব্য: