শনিবার রাতে কোপা আমেরিকা আসরে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল আর্জেন্টিনা ও চিলি। বারুদে উত্তেজনার এই ম্যাচে চিলিকে ২-১ হারিয়ে তৃতীয় স্থান পেল আর্জেন্টিনা। তবে এই ম্যাচের প্রথমার্ধেই লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন লিওনেল মেসি।

সাও পাওলোয় ম্যাচের প্রথমার্থে দুই গোলে এগিয়ে যায় আর্জেন্টিনা। ম্যাচের দ্বাদশ মিনিটে মাঝমাঠে ফাউলের শিকার হয়ে ফ্রি-কিক পেয়েছিলেন মেসি। এ সময় চিলি গুছিয়ে ওঠার আগেই সার্জিও আগুয়েরোকে বল পাস করেন মেসি। ডি বক্সে ঢুকে গোলরক্ষককে কাটিয়ে ফাঁকা জালে বল পাঠান ম্যানচেস্টার সিটির স্ট্রাইকার।

১০ মিনিটের পরই ব্যবধান দ্বিগুণ করেন পাওরো দিবালা। জিওভানি লো সেলসো পাস থেকে ডি বক্সে ঢুকে দুর্দান্ত এক গোল করেন এই তরুণ আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার।

প্রথমার্ধের ৩৭ মিনিটে মেসির লাল কার্ডের সেই ঘটনা। চিলির ডিফেন্ডার গারি মাদেল ও মেসির মধ্যে বল দখলের লড়াইয়ের সময় সংঘর্ষ বাধে। বল গোল লাইন পেরিয়ে যাওয়ার মুহূর্তে মাদেলকে পেছন থেকে ধাক্কা দিয়েছিলেন মেসি। এরপরই তার ওপর চড়াও হন মাদেল। রেফারি শুরুতে মেসিকে লাল কার্ড দেখান। পরে ভিএআর-এর সাহায্য নিয়ে মাদেলকেও লাল কার্ড দেখান।

ভিডিওতে যা দেখা গেছে তাতে, মেসির ওপর বেশ আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেছিলেন মাদেল। মেসি ছিলেন অনেকটাই নির্বিকার। এ সময় দুই দলের খেলোয়াড়দের মধ্যে চলে উত্তেজনা।

গত ১৪ বছরে প্রথম এবং আর্জেন্টিনার জার্সিতে মাত্র দ্বিতীয়বার লাল কার্ড দেখলেন মেসি। এর আগে ২০০৫ সালে অভিষেকে হাঙ্গেরির বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে লাল কার্ড দেখেছিলেন তিনি।

৫৯ মিনিটে পেনাল্টি থেকে চিলির পক্ষে ব্যবধান কমান আর্তুরো ভিদাল। ডি বক্সের ভেতর চার্লস আরানগিসকে লো সেলসো ফাউল করলে ভিএআর-এর সাহায্য নিয়ে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

বাকি সময়ে আর কোনো দল গোলের দেখা না পাওয়ায় ২-১ গোলের ব্যবধান নিয়ে মাঠ ত্যাগ করে মেসিরা। সর্বশেষ দুই আসরের ফাইনালে চিলির বিপক্ষেই হেরেছিল আর্জেন্টিনা।

মন্তব্য: