২০১১ বিশ্বকাপে কেরালার বিখ্যাত সংখ্যাতত্ত্ববিদ এম কে ডামোদারান ভারতের শিরোপা জেতার ভবিষ্যদ্বাণী করেছিলেন। ২০১৯ সালে এসেও তার ভবিষ্যদ্বাণীতে ভারতকেই শিরোপাজয়ী হিসেবে দেখালেন তিনি। সংবাদ সংস্থা ইন্দো এশিয়ান নিউজ সার্ভিসকে দেয়া তার ভবিষ্যদ্বাণীতে এবারের বিশ্বকাপের জন্য ভারতের নাম উঠে এসেছে।

২০১১ বিশ্বকাপের সময় তিনি জানিয়েছিলেন অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির জন্য ২, ৬ এবং ৭ সংখ্যাগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। এছাড়া তার ভাগ্য সংখ্যা হলো ৩৩।

শনিবার তিনি ভারতের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলির ব্যাপারে বলেন, ‘ভারতের অধিনায়ক বিরাট কোহলির জন্মসংখ্যা হলো ৫ এবং তার গোপন সংখ্যাও ৫। কাকতালীয়ভাবে ধোনি এবং কোহলি সংখ্যাতত্ত্বের বিচারে একই পালকে অবস্থান করে। কোহলির ভাগ্যসংখ্যাও ৩৩। এরা দুজন অসাধারণ বন্ধন তৈরি করেছে।’

কোহলির জন্মতারিখ বিবেচনা করে তিনি আরও বলেন, ‘তার জন্মতারিখ ৫/১১/১৯৮৮ এবং রাশি হলো বৃশ্চিক। যা সংখ্যাতত্ত্বে ৯ সংখ্যাটিকে ইঙ্গিত করে। যে কারণে ৩, ৬ এবং ৯ সংখ্যাগুলো কোহলির জন্য সৌভাগ্যের। এছাড়া তার বয়স এখন ৩০ (৩+০=৩), যা আরও বেশি সৌভাগ্যের। এ বিষয়গুলোই জানান দিচ্ছে যে কোহলি এবং ধোনি মিলে ভারতের ৩ নম্বর শিরোপাটি জিতবে।’

ডামোদারান এমনকি ভারতের প্রথম বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিল দেবের সঙ্গেও বিরাটের মিল খুঁজে পান। তিনি বলেন, ‘কপিল দেবের জন্যও ৩, ৬ ও ৯ সংখ্যাগুলো সৌভাগ্যের। তার জন্মসংখ্যা ৬ এবং গোপনসংখ্যা হলো ৩০। সে অধিনায়ক হিসেবে বিশ্বকাপ জিতেছেন ১৯৮৩ সালে, অঙ্কগুলোর যোগফল দাঁড়ায় ২১। সেটি ছিলো বিশ্বকাপের ৩ নম্বর আসর এবং তখন কপিলের বয়স ছিলো ২৪, এ অঙ্কগুলোর যোগফল হলো ৬।’

‘এসব বিষয়ই ইঙ্গিত করছে বিশ্বকাপের ১২তম আসরে, (১২কে ভাঙলে ১+২=৩ মেলে) শিরোপা জিতবে ভারত। কারণ ৩ এবং ১২ সংখ্যাগুলো ৩ গোত্রীয়ই’- বলেন ডামোদারান।

মন্তব্য: