বাংলাদেশের সংগ্রহ দেখেই মনে হয়েছিলো খুব সাধারণ ভাবে হারতে যাচ্ছে টাইগাররা। কিন্তু টাইগাররা যে কোনো পরিস্থিতিতেই হাল ছেড়ে দেবার পাত্র নয় তা যেন আবার প্রমান করলো তারা। ম্যাচ শেষ পর্যন্ত নিজেদের দখলে রাখতে পারেনি তারা। কিন্তু, শেষ মুহূর্তে এমন ড্রামা তৈরি করে ফেললো যে ম্যাচ হাতছাড়া হয়ে যাচ্ছে মনে করে কিউইদের আত্মারামও খাঁচাছাড়া হবার জোগাড় হয়েছিল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: বাংলাদেশ ২৪৪
নিউজিল্যান্ড ২৪৮/৮ (৪৭.১/৫০ ওভার, টার্গেট ২৪৫)

ড্রামার শুরু সাকিবের জোড়া আঘাত দিয়ে। বাংলাদেশের দেওয়া ছোট রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে গাপটিল ও মুনরো উদ্ধোধনী জুটিতে ব্যাট করতে আসেন। এই জুটিতে দ্রুত রান তুলতে থাকেন তারা। শুরুর পাঁচ ওভারে তোলেন ৩৫ রান তবে ষষ্ঠ ওভারে প্রথম প্রতিরোধ গড়েন সাকিব।

১৪ বল থেকে ২৫ রান তোলা গাপটিলকে তামিমের হাতে ক্যাচ বানিয়ে প্যাভিলনে ফেরত পাঠান তিনি। এরপর দ্বিতীয় উইকেটে মুনরোর সঙ্গে জুটি বাধতে আসেন উইলিয়ামসন। তবে সেই জুটি বেশি দূর যেতে দেননি সাকিব। দশম ওভারে অন্য ওপেনার মুনরোকে দ্বিতীয় শিকার বানান সাকিব। ৩৪ বল থেকে ২৪ রানে প্যাভিলনে ফিরেন মুনরো।

মুশফিকের ভুলে ৭ রানেই জীবন পেয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামস। তার ফল স্বরূপ ৭২ বল খেলে ৪০ রান করেছেন তিনি। আর সবচেয়ে বড় কথা দলের সবচেয়ে খারাপ সময়ে রস টেইলরের সঙ্গে ১০৫ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত মিরাজের বলে ধরা খেলেন তিনি। দলীয় ১৬০ রানের মাথায় মিরাজের বলে ফ্লিক করতে গিয়ে মারে তেমন জোর না থাকায় মিড উইকেটে মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে ধরা পড়েন উইলিয়ামস।

একই ওভারের প্রথম বলে উইলিয়ামসকে শিকার করার পর সেই ওভারেরই শেষ বলে টম লাথামকেও সাজঘরে পাঠান মিরাজ। লাথাম তার বলে পুল করতে গিয়েছিলেন। ডিপ মিড উইকেট থেকে দৌড়ে সামনে এসে ঝাঁপিয়ে পড়ে দারুণ ক্যাচ লুফে নিয়েছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ৪ বল খেলেও রানের খাতাই খুলতে পারেননি লাথাম। তার আগেই মিরাজের শিকারে পরিণত হন তিনি।

বাংলাদেশের জন্য ঝুঁকির কারণ হয়ে পড়া টেইলরকে ফিরিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে স্বস্তি বয়ে আনেন মোসাদ্দেক। ৯১ বলে ৯ বাউন্ডারিতে ৮২ করা টেইলরকে মুশফিকের হাতে ক্যাচ বানিয়ে আউট করেন মোসাদ্দেক।

টেইলর উইলিয়ামসন জুটি ভাঙার পর নীলসাম ও গ্র্যান্ডহোম নতুন জুটি গড়েন যা বাংলাদেশকে বিপদের সম্মুখীন করে তোলে। সাইফুদ্দিনের বলে ১৩ বলে ১৫ করা গ্র্যান্ডহোম আউট হলে পরের ওভারেই ৩৩ বলে ২৫ করে নিশামকে আউট করেন মোসাদ্দেক।

কিন্তু, শেষপর্যন্ত ২ উইকেট ও ১৭ বল হাতে রেখেই সান্টনারের ব্যাটে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় নিউজিল্যান্ড। ১২ বলে ১৭ রান করে দলের জয় সহজ করে দেন তিনি।

বাংলাদেশের হয়ে সাকিব, মিরাজ, সাইফ উদ্দিন, মোসাদ্দেক সকলেই ২ টি করে উইকেট লাভ করেন। মাশরাফি-মুস্তাফিজ ছিলেন উইকেট শূন্য।

এর আগে টসে হেরে আগে ব্যাটিং পেয়ে ৪৯ ওভার ২ বলে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২৪৪ রান করে টাইগাররা। ম্যান অফ দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন রস টেইলর।

মন্তব্য: