প্রথম বিশ্বকাপ শিরোপার লক্ষ্যে লর্ডসে আজ মুখোমুখি হচ্ছে স্বাগতিক ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টা ৩০ মিনিটে।

তবে দুইটি দলেরই বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে। সেই হিসেবে ইংল্যান্ড এর আগে তিনটি শ্বিকাপের ফাইনাল খেলেছে। অন্যদিকে নিউজিল্যান্ড ২০১৫ সালে প্রথম বারের মতো বিশ্বকাপ ফাইনাল খেলেছে। চলুন তাদের খেলা সেই ফাইনাল ম্যাচগুলো সম্পর্কে জেনে নিই।

ইংল্যান্ড

১৯৭৫ সালে বিশ্বকাপ ট্রফি হাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ অধিনায়ক

৭৫
১৯৭৫ সালে বিশ্বকাপের প্রথম আসরেই ঘরের মাটিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ফাইনাল ম্যাচ খেলেছিল ইংল্যান্ড। এই ম্যাচে ক্যারিবিয়ানরা টসে হেরে ৬০ ওভারে করেছিল ৯ উইকেটে ২৮৬ রান। জবাবে জোড়ায় জোড়ায় উইকেট হারিয়ে ১৯৪ রানেই অলআউট হয়ে সুযোগ থাকা সত্ত্বেও নিজেদের মাঠেই প্রথমবার শিরোপা জয়ের সুযোগ হারায় ইংলিশরা।

১৯৮৭ সালে বিশ্বকাপ ট্রফি জয়ের পর অস্ট্রেলিয়া দল

৮৭
১৯৮৭ সালে কলকাতার ইডেন গার্ডেনে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ফাইনালে জায়গা করে নেয় ইংল্যান্ড। এই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া টস জিতে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৫ উইকেটে ২৫৩ রান করে। জবাবে ৮ উইকেটে ২৪৬ রানে আটকে যায় ইংল্যান্ড। শেষ ওভারে জিততে ১৭ রানের প্রয়োজন ছিল কিন্তু ৯ রানের বেশি তুলতে পারেনি ইংলিশরা। ফলে ৭ রানের জয় দিয়ে বিশ্বকাপ শিরোপা ঘরে তোলে অস্ট্রেলিয়া।

১৯৯২ সালে বিশ্বকাপর ফাইনাল ম্যাচের পর পাকিস্তান দল

৯২
বিশ্বকাপের পরের আসর ১৯৯২ সালে ফের পাস্তিানের বিপক্ষে ফাইনালে জায়গা করে নেয় ইংল্যান্ড। মেলবোর্নে পাকিস্তানের কাছে মাত্র ২২ রানে হারে গ্রাহাম গুচের ইংল্যান্ড৷

নিউজিল্যান্ড

১৫
কিউইরা বিশ্বকাপ ফাইনালে উঠেছিল মাত্র একবারই ২০১৫ সালে। এই আসরে নিউজিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়া যৌথভাবে বিশ্বকাপ আয়োজন করে। দিবারাত্রির ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করে নিউজিল্যান্ড অলআউট হয় মাত্র ১৮৩ রানে। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ (৮৩) করেন গ্রান্ট এলিয়ট। অস্ট্রেলিয়ার মিচেল জনসন ও জেমস ফকনার নেন ৩টি করে উইকেট।

জবাব দিতে নেমে স্টিভেন স্মিথের অপরাজিত ৫৬ ও অধিনায়ক মাইকেল ক্লার্কের ৭৪ রানের ইনিংসে ভর করে ৭ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় অস্ট্রেলিয়া। পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপ শিরোপা জেতে অজিরা।

মন্তব্য: