ইংলিশদের প্রথমবারের মতো ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ের স্বাদ দেওয়ার নায়ক ছিলেন বেন স্টোকস। তবে সেই নয় এখন মানুষের চোখে ভিলেন। তার বিরুদ্ধে যে গুরুতর ও ঘৃণ্য এক অভিযোগ উঠেছে তা সত্যিই স্টোকসের সাথে যায় না। নিউজিলান্ডে জন্ম নেয়া এই ইংলিশ অলরাউন্ডার নাকি মারধর করেছেন নিজের স্ত্রীকে। স্টোকস আর তার স্ত্রীর ছড়িয়ে পড়া এক ছবি নিয়েই তৈরি হয়েছে যত বিতর্ক।

প্রফেশনাল ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে স্ত্রীকে সঙ্গে নিয়ে বর্ষসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার নিতে গিয়েছিলেন স্টোকস। গত ২ অক্টোবর ওই অনুষ্ঠানের একটি ছবি ছড়িয়ে দেয় ব্রিটিশ-আইরিশ ওয়েবসাইট ‘গুইদো ফকস’। যেখানে দেখা যায়, স্টোকস অনেকটাই মার দেয়ার ভঙ্গিতে স্ত্রীর গলা এক হাত দিয়ে চেপে ধরে আছেন। তার স্ত্রী ক্লারে স্টোকসও বাঁচার চেষ্টায় তার হাত দিয়ে স্বামীর হাত সরানোর চেষ্টা করছেন।

তবে এমন এক ছবি নিয়ে উল্টো কথাই বললেন স্টোকসের স্ত্রী ক্লারে। যারা এই ছবি ছড়িয়ে দিয়েছে তাদের ওপর প্রচন্ড খেপেছেন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডারের পত্নী। বলেছেন- ননসেন্স। ক্লারের দাবি, এটা নিছকই তাদের দুজনের মধ্যে একটি মজা ছিল। মাঝে মধ্যে স্বামীর মুখে চেপে ধরে এমন মজা করেন তিনিও।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমনই একটি ছবি পোস্ট করে স্টোকস পত্নী লিখেন, ‘গর্দভ লোকেরা কি বানিয়েছে দেখে আসলেই বিশ্বাস হচ্ছে না। আমি আর বেন একজন আরেকজনের মুখে এমন করে চেপে ধরি অনেক সময়। এটা আমাদের ভালোবাসা। অথচ পাপারাজ্জিরা এটাকে মজার গল্প বানিয়ে ছাড়লো! এই ঘটনার ২০ মিনিট পর কিন্তু আমরা বেশ রোমান্টিকভাবেই ম্যাকডোনাল্ডসে খেতে গিয়েছিলাম।’

তবে ক্লারের কথা নিয়ে অনেকেরই মনেই যথেষ্ট সন্দেহ আছে। কেননা ক্লারের মুখ চেপে ধরা স্টোকসের অভিব্যাক্তি অনেকটাই মারমূখী ছিল বলে মনে করছেন অনেকেই।

মন্তব্য: