শুক্রবার ক্রিকেটের তীর্থভূমি হিসেবে পরিচিত লর্ডসে নিয়মরক্ষার ম্যাচ খেলবে পাকিস্তান ও বাংলাদেশ। এই মাঠের যাবতীয় খেলা পরিচালিত হয় ক্রিকেটের আইনপ্রণেতা সংস্থা মেরিলিবোন ক্রিকেট ক্লাবের তত্ত্বাবধানে। তবে ক্রিকেটের এই সংস্থানটি নিজেদের সম্মান রক্ষার্থে বাংলাদেশ ও পাকিস্তান ম্যাচের প্যাভিলিয়নের ২৫০টি টিকিট স্থানীয় স্কুলশিক্ষার্থীদের মধ্যে বিনা মূল্যে বিতরণ করেছে এমসিসি।

এমসিসির সদস্যদের জন্য সংরক্ষিত থাকে প্যাভিলিয়নের আসন। বছরের অন্যান্য সময় সদস্যর বিনামূল্যে ম্যাচ দেখতে পারলেও বিশ্বকাপের জন্য প্যাভিলিয়নের টিকেটের মূল্য ধরা হয়েছে ৪৫ ডলার। এমসিসির সদস্যদের জন্য এই অর্থ খুব সামান্যেই বটে। তা সত্বেও এই ম্যাচের টিকের ক্রয়ের জন্য এমসিসির সদস্যদের মেইলের মাধ্যমে আকুতি জানিয়েছেন প্রধান নির্বাহী গাই ল্যাভেন্ডার। কারণ মঙ্গলবার পাঠানো তার মেইলের আগে প্যাভিলিয়নের মাত্র ৫০ শতাংশ টিকেট বিক্রি হয়েছে।

ইমেইলে তিনি লিখেছিলেন, ‘শুক্রবারের ম্যাচ টুর্নামেন্টের সবচেয়ে বড় ভাগ্য নিয়ন্ত্রক ম্যাচ হয়ে যেতে পারে। তার পরও দুর্ভাগ্যজনকভাবে এই ম্যাচের প্যাভিলিয়নের টিকিট অনেক বেশি হারে অবিক্রীত থেকে গেছে। সদস্যদের হয়তো স্মরণ থাকবে, ২০১৭ নারী বিশ্বকাপের ফাইনালে মাঠে ঠাসা দর্শকের বিপরীতে ফাঁকা প্যাভিলিয়নের তুলনা করে আলোচনা হয়েছিল। এটা এমসিসির বৈশ্বিক ভাবমূর্তির জন্যই খারাপ। শুক্রবার একই ঘটনা যেন না ঘটে এর জন্য কমিটি বদ্ধপরিকর।’

মেইল পাঠানোর পরে ইংল্যান্ড নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে। তাই বাংলাদেশ ও পাকিস্তান ম্যাচটি সেমিফাইনালে ওঠার লড়াই থেকে ছিটকে যায়। তাই ম্যাচ নিয়ে এমসিসির সদস্যদের মধ্যে আগ্রহ না থাকার বিষয়টি আন্দাজ করতে পেরেই ২৫০টি টিকিট তারা স্থানীয় স্কুলশিক্ষার্থীদের বিতরণ করে দিচ্ছে।

মন্তব্য: