টনটনে আজ মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এই ম্যাচে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা টসে জিতে প্রথমে বোলিংয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

টসে জিতে ক্যারবিয়ানদের ব্যাটিংয়ে পাঠিয়ে শুরুতেই শুভ সূচনা করে টাইগাররা। গেইলকে শূন্য হাতে ফেরান সাইফউদ্দীন। ১৩ বল থেকে কোনো রান না করেই উইকেটের পেছনে মুশফিকের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়ন ফেরেন গেইল।

গেইলকে ফেরানোর পর চাপ কাটিয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ইভিন লুইস ও শাই হোপ শতাধিক রানের জুটি গড়েন। এই জুটিতে লুইস হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেওয়ার পরই বোলারদের উপর চড়াও হচ্ছিলেন তিনি। তবে ভয়ংকর হয়ে ওঠার মুহূর্তে লুইসকে থামান সাকিব।

দলীয় ১২২ রানের সময় ৬৭ রান করা লু্ইসকে সাজঘরে ফিরিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে স্বস্তি ফিরিয়ে আনেন সাকিব। লুইসের বিদায়ে এখন ক্রিজে হোপকে সঙ্গ দিচ্ছেন নিকোলাস পুরান। হোপ ৭৫ বল থেকে নিজের হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন।

হোপ ও হেটমায়ার চাপ কাটিয়ে উঠে দ্রুত রান তুলতে থাকেন। এই জুটিতে বেশি ভয়ংকর ছিলেন হেটমায়রা। ২৬ বল থেকে নিজের অর্ধশতক পূরণ করেন তিনি। তবে এরপরই প্রথমে হেটমায়ার ও পরে তার পরিবর্তে নাম রাসেলকে একই ওভারে প্যাভিলনে ফেরত পাঠান মুস্তাফিজুর রহমান। ৪০তম ওভারে প্রথমে হেটমায়ারকে তামিমের হাতে ক্যাচে পরিণত করেন মুস্তাফিজ। এতে হেটমায়ার ও হোপের খেলা ৪৩ বল থেকে ৮৩ রানের জুটির সমাপ্তি হয়।

এ্ররপর ওভারের শেষ বলে উইকেটের পেছনে রাসেলকে (০) মুশফিকের তালুবন্ধী করেন তিনি। এক ওভারে টানা দুই উইকেটে তুলে নিয়ে ক্যারিবিয়ানদের রানের গতিতে চিড় ধরালেন মুস্তাফিজ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: উইন্ডিজ ৪৩.৩ ওভার শেষে ২৮৩/৫

ক্রিজে আছেন: হোল্ডার ৩৩ ও হোপ ৮৮

মন্তব্য: