বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে সিপিএলে বড় জয় পেলো সাকিবের দল বার্বাডোজ ট্রাইডেন্টস। শাহরুখের দল ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সকে ৬৩ রানে হারিয়ে সেমিফাইনাল খেলার সম্ভাবান বাড়ালো তারা। তবে ভ্রমন ক্লান্তি কাটিয়ে এই ম্যাচ খেলতে নামা হয়নি সাকিব আল হাসানের।

এদিন বার্বাডোজ অধিনায়ক জেসন হোল্ডার টসে জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন। দুই ওপেনার চার্লস ও কার্টার মিলে ১৩.৫ ওভারে গড়েন ১১০ রানের জুটি। দুই বলের ব্যবধানে সাজঘরে ফেরেন দুজনই। কার্টারের ব্যাট থেকে আসে ৪৬ বলে ৫১ রানের ইনিংস, ৩৯ বলে ৫৮ রান করেন চার্লস।

এসময় বার্বাডোজের হয়ে তাণ্ডব চালান প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান জেপি ডুমিনি। ইনিংসের শেষ ৩০ বলে ৭৬ রান তোলে বার্বাডোজ। যেখানে ১৭ বলে ৬২ রান আসে ডুমিনির ব্যাট থেকে। যার সুবাদে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১৯২ রান করে বার্বাডোজ।

প্রোটিয়া অলরাউন্ডারের ২০ বলে ৬৫ রানের ইনিংসটি সাজানো ছিল ৭ ছক্কা ও ৪ চারে। প্রথমবারের মতো সিপিএল খেলতে এসে ১৫ বলে ফিফটি করে ডুমিনি জন্ম দিয়েছেন নতুন রেকর্ডের। সিপিএলে এরচেয়ে কম বল খেলে আর কেউ ফিফটি করেনি আগে।

১৯৩ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে নাইট রাইডার্স শুরু থেকেই উইকেট হারাতে থাকে। লেন্ডন সিমন্স (১১), কলিন মুনরো (২৩), দীনেশ রামদিন (১১), ড্যারেন ব্রাভো (২৮) ছাড়া আর কেউ দুই অঙ্কের ঘর ছুঁতে পারেননি। অধিনায়ক পোলার্ড আউট হন ৩ রানে।

১৭.৪ ওভারে ১২৯ রানে অলআউট হয়ে যায় ত্রিনবাগো। যুক্তরাষ্ট্রের লেগস্পিনার হেইডেন ওয়ালশ ১৯ রান খরচায় ৫ উইকেট নেন। এছাড়া ব্যাটিংয়ে ঝড় তোলা ডুমিনি বোলিংয়ে নেন ২টি উইকেট।

পরাজয় সত্বেও পোলার্ডের দল ৭ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় অবস্থানে আছে। সমান ম্যাচে ৩ জয়ে সাকিবের বার্বাডোজের ঝুলিতে রয়েছে ৬ পয়েন্ট, অবস্থান চার নম্বরে। ১৪ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স।

মন্তব্য: