বিশ্বকাপের হাই ভোল্টেজ ম্যাচে ইংল্যান্ডকে ৬৪ রানের বিশাল ব্যবধানে হারালো অস্ট্রেলিয়া। ফিঞ্চের শতরানে ভর করে অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া ২৮৬ রান তাড়া করতে নেমে ২২১ রানে অলআউট হয় ইংল্যান্ড।

অসিদের দেওয়া চ্যালেঞ্জিং স্কোর তাড়া করতে নেমে শুরুতেই চাপে পড়ে গেলো ইংল্যান্ড। কোন রান তোলার আগেই শূন্য হাতে ফিরেছেন জো ভিনস। সেই ধাক্কা কাটিয়ে ওঠার আগেই জো রুটকে মাত্র ৮ রানে এল বি ডব্লিইয়ের ফাঁদে ফেলেন স্টার্ক।

দলীয় ১৫ রানে দুই ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে দলকে চাপ মুক্ত করার চেষ্টা করেন মরগান ও বোয়াস্ট্রো। তবে তাদের সেই প্রচেষ্টায় জল ঢেলে দিলেন স্টার্ক। মরগানকে ব্যক্তিগত ৪ রানে ফিরিয়ে নিজের জোড়া উইকেট তুলে নিলেন।
ইংল্যান্ডকে বিপদ মুক্ত করার চেষ্টায় হন বোয়াস্ট্রো ও স্টোকস জুটিও। এই জুটির বোয়াস্ট্রোকে ২৭ রানে বিদায় করেন বিরেনড্রোস। এ সময় ইংল্যান্ডের সংগ্রহ ছিল ৫৩/৪।

এরপর ইংল্যান্ডের হয়ে একা হাতে লড়াই করে বেন স্টোকস। তার ব্যাটে জয়ের আশা বেঁচে ছিল ইংল্যান্ডের। তাকে কিছুটা সঙ্গ দেওয়া বাটলার ফেরেন দলীয় ১২৪ রানে। বাটলারকে ২৫ রানে বিদায় করেন স্টনিস।
৩৭তম ওভারে অস্ট্রেলিয়ার জয়ের পথে সবচেয়ে বড় কাটা স্টোকসের উইকেট তুলে নেন স্টার্ক। সরাসরি বোল্ড আউট হওয়ার আগে ১১৫ বল থেকে ৮টি চার ও ২টি ছক্কায় ৮৯ রান নিয়ে প্যাভিলনে ফেরেন স্টোকস।

স্টোকসের বিদায়ের পর মাত্র ৪৪ রান খরচায় শেষ চারটি উইকেট তুলে নেন অস্ট্রেলিয়া। যেখানে আদিন রশিদ ২৫ রান ছাড়া আর কেউই দুই অঙ্কের ঘর ছুতে পারেননি। ৪৪.৪ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২২১ রানে সবকটি উইকেট হারায় ইংল্যান্ড।

অস্ট্রেলিয়া বোলিংয়ে সামনে থেকে নেতৃত্ব দেন বিয়াহোরেনড্রোফ । তিনি ৪৪ রান খরচায় নেন ৫টি উইকেট। এছাড়া মিচেল স্টার্ক ৮.৪ ওভারে ৪৩ রানে নেন ৪টি উইকেট। অন্য উইকেটটি নেন স্টনিস।

মন্তব্য: