আইপিএলে পরাজয় দিয়ে আসর শেষ করল সাকিবের দলে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। শুক্রবার রাতে তাদেরকে ৪ উইকেটে হারিয়ে জয় দিয়ে মৌসুম শেষ করেছে ছয় হার দিয়ে আইপিএল শুরু করা রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। এদিন প্রথমে ব্যাট করে সাত উইকেটে ১৭৫ রান তোলে হায়দরাবাদ। জবাবে ৪ বল বাকী থাকতে ৪ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় ব্যাঙ্গালুরু। এর ফলে অনেকটা সুবিধা হল কলকাতার। রবিবার মুম্বাইকে হারাতে পারলেই কলকাতা চলে যাবে আইপিএলের প্লে-অফে।

এদিকে হায়দরাবাদের প্লে অফ খেলার পরিসংখ্যানটা এখন নির্ভর করছে মুম্বাই ও কলকাতা ম্যাচের উপর। কারণ এই ম্যাচে মুম্বাই জিতলে প্লে অফ খেলতে পারবে হায়দরাবাদ। আইপিএলের ১২ তম আসরে ১৪ ম্যাচে ছয় জয় নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের চতুর্থ স্থানে রয়েছে তারা। এক ম্যাচ কম খেলে সমান পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে থাকা কলকাতা হায়দরাবাদের থেকে নিট রান রেটে পিছিয়ে রয়েছে।

এদিনের ম্যাচে টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন আরসিবি অধিনায়ক বিরাট কোহলি। প্রথমে ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের ৪৩ বলে ৭০ রানের অপরাজিত ইনিংসের সুবাদে ৭ উইকেটে ১৭৫ রান করে হায়দরাবাদ। আরসিবি-র হয়ে ওয়াশিংটন সুন্দর তিনটি এবং নবদীপ সাইনি দু’টি উইকেট নেন।

রান তাড়া করতে নেমে ব্যাঙ্গালুরুর ব্যাটিং শুরুতেই নড়বড় করতে থাকে। পার্থিব প্যাটেল শূন্য রানে আউট হন। বিরাট কোহলি ১৬ ও এবি ডিভিলিয়ার্স ১ রান করে ফেরেন। ২০ রানের মধ্যে তিনটি উইকেট পড়ে ব্যাঙ্গালুরু তখন রীতিমতো ধুঁকছে।

এই অবস্থায় ইনিংসের হাল ধরেন শিমরন হেটমায়ের ও গুরকিরত মান সিং। দুজনে অনবদ্য ১৪৪ রানের পার্টনারশিপ গড়েন। ৪৭ বলে ৭৫ করেন শিমরন। আর গুরকিরত করেন ৪৮ বলে ৬৫ রান।

এই দুই ব্যাটসম্যানের জুটিতে ১৪৪ রান যোগ হয়। হেটমায়ের ও মান সিং ফিরে যাওয়ার পর ওয়াশিংটন সুন্দরও (০) রানে ফিরে যাওয়ায় ফের চাপে পড়ে গিয়েছিল আরসিবি। তবে শেষ ওভারের প্রথম দু’টি বলে চার মেরে দলকে জয় এনে দেন উমেশ যাদব।

৪৭ বলে ছয় ছক্কা ও চার বাউন্ডারির অসাধারণ ৭১ রান করে দলকে জেতানোয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় ম্যান অফ দা ম্যাচ নির্বাচিত হন শিমরন হেটমায়ের।

মন্তব্য: