মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেবেন তাসকিন

Taskin Ahmed
তাসকিন আহমেদ বিয়ে করেছেন ২০১৭ সালের অক্টোবরে। আর এরই মধ্যে কিনা তার দাম্পত্য জীবনের সুখ দুঃখের কাহিনী নিয়ে নানা রকম কাল্পনিক কাহিনী চাউর করার চেষ্টা করছে একটি পোর্টাল। আর এসব আজে বাজে গুজব রোটানোয় দারুন চটেছেন এই পেসার।

গতকাল দুপুরে অনুশীলন শেষে বাসায় ফেরার পরেই আসতে থাকে একের পর এক ফোন কল। তাসকিনের কাছে সকলের একটাই প্রশ্ন ঘটনা কী? মাত্র এই কয়েক মাসের মাঝেই কি এমন হলো স্ত্রী সৈয়দা রাবেয়া নাঈমার সঙ্গে?

সম্প্রতি একটি অনলাইন পোর্টালে খবর বেরিয়েছে, স্ত্রীকে নাকি মারধর করেছেন তাসকিন আহমেদ! আর খবরটি খুবই দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এ ধরণের মিথ্যা ভিত্তিহীন খবরে ভীষণ বিরক্ত ও ক্ষুব্ধ হয়েছেন তাসকিন আহমেদ। ক্ষোভের সঙ্গেই জানালেন, প্রয়োজনে আইনি ব্যবস্থা নেবেন ওই পোর্টালের বিরুদ্ধে।

পোর্টালটি লিখেছে, ‘…তাসকিনের বিরুদ্ধে তাঁর স্ত্রী সৈয়দা রাবেয়া নাঈমাকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে।’ এমন মিথ্যা ও আতংকজনক খবর ছড়িয়ে পড়ার পর থেকে বেশ বিব্রতকর ও অস্বস্তিকর অবস্থায় পড়েছে তাসকিন ও তাঁর পরিবার। আত্মীয় স্বজন, বন্ধুবান্ধব, সতীর্থ ও সাংবাদিকেরা এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে চাইছেন তাঁর কাছে।

বাংলাদেশের একটি জনপ্রিয় নিউজ পোর্টালকে তাসকিন জানিয়েছেন, ‘এসবের কোনো অর্থ আছে? বিয়ের সময় একবার কিছু পোর্টালে আমাকে নিয়ে আজেবাজে খবর প্রকাশ করল। এখন আবার পেছনে লেগেছে। কারা এসব খবর প্রকাশ করে বলতে পারেন? আমি এদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেব। বাংলাদেশ দলের একজন খেলোয়াড় হিসেবে এতটুকু সম্মান কি পেতে পারি না?’

তাসকিনের স্ত্রী রাবেয়াও ভীষণ ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত এই খবরে, ‘আমাকে মারধর করল অথচ আমিই জানি না! এ ধরনের খবরে একটি মানুষ, একটি পরিবার কতটা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ে, সেটা কি তারা উপলব্ধি করতে পারে?’

আরও পড়ুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *