কেনিংটন ওভালে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে নিউজিল্যান্ডের নিয়ন্ত্রীত বোলিংয়ে ৯ উইকেটে ২৪৪ রান তুলল। বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৬৪ রানের ইনিংসটি খেলেন সাকিব আল হাসান। বাকিদের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৯ রানে আসে সাইফের ব্যাট থেকে।

টসে হেরে আজও বাংলাদেশ দলের হয়ে উদ্ধোধনী জুটিতে অনুমিত ভাবেই ব্যাট করতে আসেন তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। এদিন তামিম প্রথম ওভারে বাউন্ডারি মেরে দলের রানের খাতা খেলেন। তবে দুই ব্যাটসম্যানই দেখেবুঝে নিউজিল্যান্ড ব্যাটসম্যানদের খেলতে থাকেন। তবে এই জুটিতে ৪৫ রানের বেশি তুলতে পারেননি তারা।

নবম ওভারে ম্যাট হেনরির করা তৃতীয় বলটিতে সরাসরি বোল্ড হন সৌম্য। ক্রিজ ছাড়ার আগে ২৫ বল থেকে ৩টি বাউন্ডারিতে ২৫ রান নিয়ে প্যাভিলনে ফেরেন সৌম্য। তার বিদায়ের পর ক্রিজে নতুন জুটি গড়তে আসেন সাকিব আল হাসান। তবে দ্বিতীয় উইকেটে তামিম সাকিবকে বেশি দূর সঙ্গ দিতে পারেননি।

দলীয় ৬০ রানে ফারগুসনের বল পুল করতে গিয়ে ক্রিজে ক্যাচ আউট হন তিনি। ৩৮ বল থেকে ৩টি বাউন্ডারিতে ২৪ রান করেন তামিম। তামিমের বিদায়ের পর দলকে চাপ মুক্ত করেন সাকিব ও মুশফিক জুটি। তবে এই জুটির অর্ধশতক পূরণের পরই রান আউটে কাটা পড়লেন মুশফিক। গাপটিল ও ল্যাথামের যুগবন্ধীতে ৩৫ বল থেকে ১৯ রান নিয়ে প্যাভিলনে ফেরত গেলেন তিনি।

মুশফিকের বিদায়ের পর চতুর্থ উইকেটে মিঠুনের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন সাকিব। তবে তারা ৪১ রান যোগ দেওয়ার পর ম্যাট হেনরি গড়েন প্রতিরোধ। ৫৪ বল থেকে হাফ সেঞ্চুরি তুলে নেওয়া সাকিবকে ৬৪ রানে প্যাভিলনে ফেরত পাঠান তিনি।

সাকিবের বিদায়ের পর ক্রিজে আগমন হয মাহমুদউল্লাহর। পঞ্চম উইকেটে তারা ২৮ রানের বেশি যোগ করতে পারেননি। দলীয় ১৭৯ রানে মিঠুনের উইকেট তুলেন নেন হেনরি। মিঠুন ৩৩ বল থেকে ২৬ রান করেন। এরপর আর কেউই বলের সাথে তাল মিলিয়ে রান তুলতে পারেননি। মাহমুদউল্লাহ ৪১ বল থেকে ২০, মোসাদ্দেক ২২ বল থেকে ১১ রান করে আউট হন।

শেষদিকে সপ্তম উইকেটে ব্যাট করতে নামা সাইফউদ্দীনের ব্যাটে কিছুটা লড়াই করে বাংলাদেশ। ৪৯.২ ওভারে হেনরির বলে তিনি বোল্ড আউট হলে ২৪৪ রানে শেষ হয় বাংলাদেশের ইনিংস। সাইফ ২৩ বল থেকে ২৯ রান করেন।

নিউজিল্যান্ড বোলারদের মধ্যে হেনরি ৪৭ রান দিয়ে একাই নেন ৪টি উইকেট। বোল্ট ৪৪ রানে নেন ২টি উইকেট। ফারগুসন, স্যান্টনার ও গ্রান্ডহোম নেন ১টি করে উইকেট।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ১০ ওভার ব্যাটিং করে ২ উইকেট হারিয়ে ৫৫ রান সংগ্রহ করেছে নিউজিল্যান্ড। অধিনায়ক উইলিয়ামস ১৩ বলে ৬ রান করেছেন ও টেলর এখনো কোনো বল মোকাবেলা করেননি।

মন্তব্য: