বিশ্বকাপের পর্দা নেমেছে বেশ কয়েকদিন হলেও ইংল্যান্ড যেভাবে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হয়েছে তা নিয়ে সমালোচনা থামছে না। সাবেক অনেক রথি-মহারথিরা কুমার ধর্মসেনার বাজে সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন।

৫০তম ওভারের চতুর্থ বলে দু’রান নেওয়ার সময় রান-আউট থেকে বাঁচতে ডাইভ দেন ব্যাটসম্যান স্টোকস৷ গাপটিলের ছোঁড়া বল স্টোকসের ব্যাটে লেগে বাউন্ডারিতে চলে যায়৷ এ সময় কুমার ধর্মসেনা ফিল্ড আম্পায়ার মাইরাজ ইরাসমাসের সঙ্গে আলোচনা করে মোট ছয় রান দেন।

আইসিসির নিয়ম (১৯.৮) অনুযায়ী, ইংল্যান্ড চতুর্থ বল থেকে ৫ রান পেতো। আর এক রান কম হলে শেষ ২ বলে জয়ের জন্য তিনের বদলে ৪ রান দরকার হতো। যেহেতু শেষ দুই বল থেকে ইংল্যান্ড ২ রান সংগ্রহ করেছে। আর সেটা হলে ম্যাচ টাই হত না। নিউজিল্যান্ড ১ রানে জয়ী হত।

এই সিদ্ধান্তের কারণে ম্যাচের মোড় ঘুরে যায়। নিউজ্যাল্ডের জন্য বিশ্বজয়ের স্বপ্নকে খুন করার সামিল বলছেন অনেকে। বিতর্ক চলছে প্রাক্তন ক্রিকেটারদের মধ্যেও। এমন পরিস্থিতিতে বেন স্টোকসের ‘ক্রিকেটীয় শিষ্টাচারের’ প্রসঙ্গ তুললেন ব্রিটিশ তারকা জেমস অ্যান্ডারসন। তাঁর দাবি, গাপটিলের থ্রো ব্যাটে লেগে বাউন্ডারি চলে যাওয়ার পর, চার রান ‘পেনাল্টি’ দেওয়ার সিদ্ধান্ত বদল করতে আম্পায়ারদের অনুরোধ করেছিলেন বেন স্টোকস।

বিবিসি-কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে জিমি জানিয়েছেন, “ক্রিকেটীয় শিষ্টাচার অনুযায়ী স্টাম্পে থ্রো করা বল গায়ে লাগলে কেউ আর রান নেয় না। কিন্তু তা বাউন্ডারিতে চলে গেলে চার রান দিতেই হয়, এটাই নিয়ম।”

একই সঙ্গে তিনি এও জানান, স্টোকসকে আম্পায়রদের সঙ্গে কথা বলতে দেখেন প্রাক্তন ব্রিটিশ অধিনায়ক মাইকেল ভন। তাঁর দাবি, আম্পায়ারদের ওভার থ্রো-তে রান দেওয়ার সিদ্ধান্ত বদল করার অনুরোধ করেছিলেন বেন স্টোকস। কিন্তু নিয়মের কারনেই তা হয়নি।

উল্লেখ্য, ম্যাচের শেষে তারকা ক্রিকেটার বেন স্টোকস নিজেই জানিয়েছেন এমন অপ্রত্যাশিত ঘটনার জন্য তিনি আজীবন কিউই অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের কাছে ‘ক্ষমাপ্রার্থী’ থাকবেন।

মন্তব্য: