দলে ডাক পাওয়ার পর অনেকে অনেক কথায় বলেছেন মোসাদ্দেক কে নিয়ে। মোসাদ্দেকের একাদশে সুজোগ পাওয়া নিয়েও ছিলো সংশয়। যেখানে ৭ এ ব্যাট করার জন্য হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমান আছেন সেখানে সৈকতের সুজোগ পাওয়া একটু কঠিনই ছিলো। কিন্তু মোসাদ্দেকের কার্যকরী বোলিং,ত্রিদেশীয় সিরিজে উইন্ডিজের বিপক্ষে ২৪ বলে ৫২ রানের এক দুর্দান্ত ইনিংসে ফাইনাল জয় ও ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে ধারাবাহিক পারফরমেন্স সব মিলে একাদশে জায়গা পেতে অসুবিধা হয়নি তার।

আর ভালোই আস্থার প্রতিদান দিচ্ছেন টিম ম্যানেজমেন্টের। আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত বেশ সফল মোসাদ্দেক হোসেন। সাতে নেমে দলের প্রয়োজনটা বেশ ভালোভাবেই মেটাচ্ছেন তিনি।৫ ম্যাচে ২৪ গড়ে রান করেছেন ৯৮। আর তার স্ট্রাইক রেট ও ১২০ ছুঁই ছুঁই। বল হাতেও ৫.৫৭ ইকোনমিতে উইকেট নিয়েছেন ৩ টি। বিশ্বকাপের আগেই নিজেকে উপযুক্ত করে তৈরি করে রেখেছিলেন বলে জানিয়েছেন মোসাদ্দেক।

সাতে ব্যাট করে বড় ইনিংস খেলা খুব কঠিন আর সুজোগ কম পাওয়া যায়।তাই মোসাদ্দেক হোসেন বলেছেন, “সাত নম্বরে ব্যাট করা শুধু আমার জন্য না, সবার জন্যই চ্যালেঞ্জ। এ সময় নিজের চেয়ে দলের রানটা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। সবাই চেষ্টা করে এখানে যত তাড়াতাড়ি রানটা তুলতে পারে। প্রিমিয়ার লিগেও এই চেষ্টা করেছি- স্ট্রাইক রেটটা যেন বেশি থাকে। মানসিকভাবে নিজেকে তৈরি রেখেছিলাম, এখানে সুযোগ পেলে যেন কাজটা করতে পারি।”

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে উপরের দিকে ব্যাট করেছেন তিনি। আর দল আবাহনী কে জিতিয়েছেন শিরোপা। উপরে ব্যাটিং করা নিয়ে সৈকত বলেন, “সাধারণত আমি উপরে ব্যাটিং করে এসেছি। তবে এখানে যারা উপরে ব্যাট করছে তারা অবশ্যই আমার চেয়ে বেশি যোগ্য। তাদের পারফরম্যান্সও বলছে আমি এখন উপরে চাইলেও হয়ত জায়গা পাব না। ভবিষ্যতে উপরে খেলার জন্য অনুশীলন করব।”

মন্তব্য: