২০১৯ বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডকে একা হাতে হারিয়ে ইংল্যান্ডকে শিরোপা জিতিয়েছেন বেন স্টোকস। যদিও ভাগ্যটাও এবার স্বাগতিক ইংল্যান্ডের সঙ্গেই ছিল। তা সত্বেও নিউজিল্যান্ডের সেরা নারগরিক হওয়ার তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন স্টোকস।

নিউজিল্যান্ড জন্ম হলেও ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই ইংল্যান্ড হয়ে খেলছেন স্টোকস। পিতা-মাতা নিউজিল্যান্ড থাকলেও ইংল্যান্ডের থাকেন তিনি। নিজেকে এখন ইংরেজ বলেই মনে করেন স্টোকস। তবে জন্ম সূত্রে নিউজিল্যান্ডের বাসিন্দা হওয়ার সে দেশের সেরা নাগরিক হওয়ার মনোনয়ন পেয়েছেন তিনি। তবে এই পুরস্কার নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন তিনি।

সেশ্যাল মিডিয়ায় নিজের একটি পোস্টে এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। একই সাথে ‘নিউজিল্যান্ডার অব দ্য ইয়ার’ পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পাওয়া কিউই অধিানরয়ককে নিজের ভোটটি দিয়েছেন।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লেখা এক পোস্টে স্টোকস বলেছেন,

‘নিউজিল্যান্ডের বর্ষসেরা নাগরিক হওয়ার জন্য আমাকে মনোনীত করা হয়েছে, এ আমার জন্য অনেক গর্বের একটা বিষয়। নিউজিল্যান্ড ও মাওরি ঐতিহ্যের একজন হতে পেরে আমি গর্বিত। কিন্তু এমন সম্মানজনক পুরস্কারের জন্য আমাকে মনোনয়ন দেওয়াটা ঠিক নয়। অনেক মানুষ আছেন যারা নিউজিল্যান্ডের জন্য আমার থেকেও বেশি করেছেন। অনেক মানুষ আছেন যারা আমার থেকেও বেশি যোগ্য, এ পুরস্কার পাওয়ার জন্য। আমি ইংল্যান্ডকে বিশ্বকাপ জিতাতে সাহায্য করেছি। আমি এখানেই পাকাপাকিভাবে থিতু। সেই ১২ বছর বয়স থেকে আমি যুক্তরাজ্যে বাস করছি।’

এরপর কেইন উইলিয়ামসনকে নিজের সমর্থন নিয়ে স্টোকস বলেন,

‘আমার মনে হয় পুরো দেশের মানুষের উচিত নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনকে সমর্থন দেওয়া। তাঁকে কিউই কিংবদন্তি হিসেবে গণ্য করা উচিত। সম্মান ও মর্যাদার সঙ্গে সে নিউজিল্যান্ডের অধিনায়কত্ব করেছে এই বিশ্বকাপে। টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড় ছিল উইলিয়ামসন। নেতা হিসেবেও সে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। সে অনেক ভালো একজন মানুষ, খেলার মধ্যে বিভিন্ন পর্যায়ে সে তাঁর খেলোয়াড়ি মানসিকতা বজায় রাখে। নিউজিল্যান্ডের বর্ষসেরা নাগরিক হওয়ার জন্য যা যা গুন থাকা প্রয়োজন, আমি মনে করি তার সবগুলোই উইলিয়ামসনের আছে। নিউজিল্যান্ড, তাঁকে সমর্থন দাও। সে এই পুরস্কারের যোগ্য এবং আমার ভোটটাও সেই পাচ্ছে।’

‘নিউজিল্যান্ডার অব দ্য ইয়ার’ পুরস্কারের মনোনয়ন প্রাপ্তদের মধ্যে ১০ জনের তালিকা চূড়ান্ত করা হবে আগামী ১০ ডিসেম্বর। বর্ষসেরার পুরস্কার দেওয়া হবে আগামী বছরের ফেব্রুয়ারিতে।

মন্তব্য: