মুশফিকের ভুলে ৭ রানেই জীবন ফিরে পেয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামস। তার ফল স্বরূপ ৭২ বল খেলে ৪০ রান করেছেন তিনি। আর সবচেয়ে বড় কথা দলের সবচেয়ে খারাপ সময়ে রস টেইলরের সঙ্গে ১০৫ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত মিরাজের বলে ধরা খেলেন তিনি। দলীয় ১৬০ রানের মাথায় মিরাজের বলে ফ্লিক করতে গিয়ে মারে তেমন জোর না থাকায় মিড উইকেটে মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে ধরা পড়েন উইলিয়ামস।

একই ওভারের প্রথম বলে উইলিয়ামসকে শিকার করার পর সেই ওভারেরই শেষ বলে টম লাথামকেও সাজঘরে পাঠান মিরাজ। লাথাম তার বলে পুল করতে গিয়েছিলেন। ডিপ মিড উইকেট থেকে দৌড়ে সামনে এসে ঝাঁপিয়ে পড়ে দারুণ ক্যাচ লুফে নিয়েছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ৪ বল খেলেও রানের খাতাই খুলতে পারেননি লাথাম। তার আগেই মিরাজের শিকারে পরিণত হন তিনি।

বাংলাদেশের জন্য ঝুঁকির কারণ হয়ে পড়া টেইলরকে ফিরিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে স্বস্তি বয়ে আনলেন মোসাদ্দেক। ৯১ বলে ৯ বাউন্ডারিতে ৮২ করা টেইলরকে মুশফিকের হাতে ক্যাচ বানিয়ে আউট করেন মোসাদ্দেক।

টেইলর উইলিয়ামসন জুটি ভাঙার পর নীলসাম ও গ্র্যান্ডহোম নতুন জুটি গড়েন যা বাংলাদেশকে বিপদেরভ সম্মুখীন করে তোলে। সাইফুদ্দিনের বলে ১৩ বলে ১৫ করা গ্র্যান্ডহোম আউট হলে পরের ওভারেই ৩৩ বলে ২৫ করে নিশামকে আউট করেন মোসাদ্দেক।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ৪৫ ওভার ব্যাটিং করে ৭ উইকেট হারিয়ে ২২৭ রান সংগ্রহ করেছে নিউজিল্যান্ড। জয়ের জন্য তাদের প্রয়োজন ৩০ বলে ১৮ রান। হাতে ৩ উইকেট। আর ক্রিজে আছেন সান্টনার ৮ বলে ৯ ও হেনরি ৩ বল খেলে ২ রান করে।

মন্তব্য: