২০০৯ সালে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছিল। এরপর পরের ১০ বছরে কোনো বড় দলই পাকিস্তান সফরে যায়নি। সেই রীতি ভেঙে ২৪ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার পাকিস্তানে পা রাখলো সেই শ্রীলঙ্কা দল।

পাকিস্তান সরকার লঙ্কান ক্রিকেটারদের রাষ্ট্রপ্রধানের সমান নিরাপত্তা দিচ্ছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলকে ৷ মঙ্গলবার কঠোর নিরাপত্তায় ঘেরা টোপে করাচি পৌঁছে যান দ্বীপরাষ্ট্রের দলটি। গত দশ বছরের মধ্যে টেস্ট খেলুড়ে বড় কোনো দলের এটিই প্রথম পাকিস্তান সফর।

তবে মঙ্গলবার করাচিতে পা রাখার পর কোনো সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেয়নি শ্রীলঙ্কা। এমনকি বুধবারের প্রাক-ম্যাচ অনুশীলন সেশনও বাতিল করেছে। অথাৎ ম্যাচের আগে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটাররা নিজেদের একরকম হোটেল বন্দী করে রেখেছেন। ফলে ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের প্রথমটিতে কোনো রকম প্রস্তুতি ছাড়াই মাঠে নামছে লঙ্কানরা।

যদিও পাকিস্তানের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয় স্বস্থি প্রকাশ করেছেন এই সফরে শ্রীলঙ্কা টি-টোয়েন্ট দলের অধিনায়ক দাসুন শানাকা। তিনি বলেন, ‘আমাদের যে নিরাপত্তা দেয়া হয়েছে, তাতে আমরা সন্তুষ্ট। পাকিস্তান সফরে দলের নেতৃত্ব পেয়েও খুশি আমি। শক্তিশালী স্বাগতিকদের বিপক্ষে আমরা কঠিন লড়াই করতে পারব বলেই আশা করছি।’

করাচিতে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ শেষে লাহোরে যাবে শ্রীলঙ্কা দল। সেখানে তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ খেলবে পাকিস্তান-শ্রীলঙ্কা ৷ ২০০৯ সালে এই লাহোরেই লঙ্কান টিম বাসের ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটেছিল।

মন্তব্য: