গতকাল (২০ জুন ) বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়ার ম্যাচটি ছিল দুর্দান্ত একটি ম্যাচ। পাহাড়সম রানের টেক্কা দিতে গিয়ে পাহাড়ের চূড়ায় পৌঁছাতে না পারলেও কাছাকাছি ঠিকই গিয়েছিলো টাইগাররা। আর তাইতো ক্রিকেট বিশ্বের নামি দামি তারকারা টাইগারদের নিয়ে প্রশংসার ঝড় তুলে দিয়েছেন।

এরই মধ্যে ভারতীয় ক্রিকেট বিশ্লেষক হার্শা ভোগলে বলেন, ‘অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টাইগাররা যে পারফরম্যান্স প্রদর্শন করেছে তাতে ম্যাচ হেরে গেলেও কষ্ট না পেয়ে গর্বিত হওয়া উচিৎ বাংলাদেশের।

চলতি বিশ্বকাপে নিজেদের ষষ্ঠ ম্যাচে লড়াইয়ের মুখোমুখি হয় বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশ। নটিংহ্যামের টেন্ট্র ব্রিজে প্রথমে ব্যাট করে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৮১ রান তুলেছে অস্ট্রেলিয়া। সেই রান তাড়া করতে নেমে ৮ উইকেটে ৩৩৩ রানে শেষ হলো বাংলাদেশের ইনিংস। ৪৮ রানের ব্যবধানে জয় পায় অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশের হয়ে মুশফিকুর রহিম বিশ্বকাপ ইতিহাসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ১০২ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন।

অস্ট্রিলিয়ার ছুড়ে দেয়া ৩৮১ রানের এই বিশার স্কোর তাড়া করার লড়াকু মনমানসিকতাকে ‘তেজস্বী’ আখ্যা দিয়ে ভোগলে এক টুইট বার্তায় বলেন, ‘তেজস্বী হয়ে বাংলাদেশ রান তাড়ায় নেমেছিল। অনেক রান দিয়ে ফেলেছিল বল হাতে। তবে তারা এই ম্যাচ নিয়ে গর্বিত হতে পারে। অস্ট্রেলিয়াও এই ম্যাচে খুব শক্তিশালী ছিল।’

তবে সেমিফাইনালের লাইনআপে থাকতে হলে অস্ট্রেলিয়াকে অবশ্যই হারাতে হতো বাংলাদেশকে। এখন নিজেদের বাকি ম্যাচগুলোতে জয় তুলে আনার পরও চোখ রাখতে হবে নির্দিষ্ট কিছু ম্যাচে, নির্দিষ্ট কিছু ফলাফলের জন্য। তবে শেষ চারে যদি উঠতে ব্যর্থও হয়, তবুও পয়েন্ট টেবিলের পাঁচ নম্বর দল হিসেবে আসর শেষ করার সুবর্ণ সুযোগ আছে বাংলাদেশের সামনে।

র‍্যাংকিংয়ের সাত নম্বর দল হয়ে বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রিকেট আসরে এটিও নিশ্চয়ই কম অর্জন নয়! প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ নিজেদের পরের তিনটি ম্যাচ খেলবে এশিয়ার তিন দল আফগানিস্তান, ভারত ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে।

মন্তব্য: