চলতি বছর ডিসেম্বরের ৬ তারিখে পর্দা উঠার কথা বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) সপ্তম আসরের। কিন্তু কয়েক দিন ধরে প্রশ্ন উঠেছে সঠিক সময়ে মাঠে গড়াবে কিনা এবারের বিপিএল।

এদিকে বিপিএল টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য ও বিসিবির মিডিয়া কমিটির চেয়ারম্যান জালাল ইউনুস আশ্বস্ত করেছেন, সঠিক সময়ই অনুষ্ঠিত হবে বিপিএলের পরবর্তী আসর।

আসন্ন আসরের সিংহভাগ কাজ এখনো বাকি পড়ে আছে। মূলত এই কারণেই সূচি অনুযায়ী বিপিএল মাঠে গোড়ানো নিয়ে তৈরি হয়েছে শঙ্কা। বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের প্রথম কাজ ফ্র্যাঞ্জাইজিগুলোর সঙ্গে নতুন করে চুক্তি করা। এরপর নতুন চার বছর সাইকেলের নীতিমালা অনুযায়ী টুর্নামেন্টটি চালানো নিশ্চিত করা। চিটাগংভিত্তিক ফ্র্যাঞ্জাইজির নতুন মালিকও খুঁজে নিতে হবে তাদের।

সবকিছুই সঠিক নিয়মে চলছে জানিয়ে জালাল ইউনুস বলেন, ‘এগুলো সব অনুমান। পরবর্তী বিপিএলের সময়সূচি অনুযায়ী অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে আমরা আত্মবিশ্বাসী। আমরা অনুমাননির্ভর কিছু বলতে পারি না। পরিকল্পনা অনুযায়ী টুর্নামেন্টটি অনুষ্ঠিত হওয়া নিয়ে বোর্ড এবং বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল আশাবাদী।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা এখনো চিটাগংয়ের ফ্র্যাঞ্জাইজির মালিক চূড়ান্ত করতে পারিনি। তিনটি পক্ষ আগ্রহ দেখিয়েছে এবং বোর্ড এ বিষয়ে বসে সিদ্ধান্ত নেবে। আমরা শিগগিরই টুর্নামেন্টের নীতিমালা এবং নতুন চুক্তি ফ্র্যাঞ্জাইজিগুলোর সঙ্গে শেয়ার করবো। বোর্ডের প্রধান নির্বাচক এই মুহূর্তে নেই, তিনি এলেই সব কাজ শুরু হবে। আমি ব্যক্তিগতভাবেই আশাবাদী পরিকল্পনা মতোই সবকিছু হবে।’

তবে বিপিএলের পরবর্তী আসর অনুষ্ঠিত হওয়ার পেছনে আরেকটি বাধা ফ্র্যাঞ্জাইজিগুলোর সঙ্গে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের দ্বন্দ্ব। নীতিমালা পরিবর্তন করে নতুন করে শুরু করার পক্ষে নয় ফ্র্যাঞ্জাইজিগুলো।

মন্তব্য: