জিতলে টিকে থাকবে সম্ভাবনা, হারলে শেষ। এমন বাস্তবতা সামনে রেখে বিশ্বকাপে নিজেদের জন্য মহাগুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠা ম্যাচে আগ্রাসী ভারতের মুখোমুখি হতে যাচ্ছে মাশরাফী বাহিনী। বার্মিংহ্যামের এজবাস্টনে বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে তিনটায় মাঠে গড়াবে ম্যাচটি। এই ম্যাচে খেলতে নামার আগে মাশরফি বিন মর্তুজা দলের খেলোয়াড়দের কোনোভাবে উত্তেজিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

ম্যাচের আগে রবিবার সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বলেন, ‘মাথা ঠান্ডা রেখে এই ম্যাচটা খেলা সবচেয়ে জরুরি। আসলে ভারতের সঙ্গে আমাদের লড়াই ঘিরে মারাত্মক একটা আগ্রহ তৈরি হয়েছে। যে কারণে আমাদের দলের ক্রিকেটারদের উত্তেজনা এড়িয়ে চলা খুব কঠিন।’

মাশরাফি আরো বলেছেন, ‘এই সব ম্যাচে শুরু থেকেই স্নায়ুর চাপ থাকবে। বাইরের চাপটাও অসম্ভব। আমাদের নিজেদের এই চাপের বাইরে রাখতে হবে।’

এদিকে ভারত-বাংলাদেশ ম্যাচ নিযে সবসময়ই সোশ্যাল মিডিয়ায় উত্তেজনা বিরাজ করে। যা নিয়ে মাশরফি বলেছেন, ‘আমাদের এখন একটাই কাজ। এই ধরনের উত্তেজনা থেকে দূরে থাকা। সোশ্যাল মিডিয়ায় যা হচ্ছে বা হবে, তা আমাদের ভাল খেলতে সাহায্য করবে না। তাই এ সব নিয়ে যত কম মাথা ঘামানো যায় তত ভাল। সন্দেহ নেই এই ম্যাচটায় দারুণ খেলে জিততে পারলে সেটা একটা বিরাট সাফল্যের ব্যাপার হবে বাংলাদেশের কাছে।’

একই সঙ্গে ২০০৭ সালের বিশ্বকাপের কথাও স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন বাংলাদেশের অধিনায়ক। তিনি বলছেন, তৎকালীন অধিনায়ক হাবিবুল বাশার তাঁকে অনেক সাহায্য করেছেন। ভারতের বিরুদ্ধে জয়ে তাঁর অবদান ছিল অনস্বীকার্য। ম্যাচের সেরাও হয়েছিলেন মাশরাফি। এক যুগ পরে আবার তেমনই এক মহারণে এবার দলকে নেতৃত্ব দেবেন তিনি। মাশরাফি মনে করছেন, রাহুল-রোহিত-বিরাট-ঋষভ-ধোনি-হার্দিকদের কাছে কঠিন পরীক্ষা হতে চলেছেন বাঁ হাতি স্পিডস্টার মুস্তাফিজুর রহমান। চলতি বিশ্বকাপে এখনও পর্যন্ত ১০ উইকেট রয়েছে তাঁর। বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফির কথায়, “মুস্তাফিজুর ফর্মে রয়েছে। ওর কাটারও ঠিকঠাক ভাবে কাজ করেছে। ও ভাল খেলবে।”

মন্তব্য: