লর্ডসে মরণ-বাঁচন লড়াইয়ে আফ্রিকাকে ডুবিয়ে বিশ্বকাপে সেমিফাইনালের আশা জি্ইয়ে রাখলো পাকিস্তান। তাদের দেওয়া ৩০৯ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ২৫৯ রানে শেষ আফ্রিকার ইনিংস। পাকিস্তান ম্যাচ জিতে নেয় ৪৯ রানে। ম্যাচ সেরা হয়েছেন ব্যাট হাতে ৫৯ বল থেকে ৮৯ রান করা হারিস সোহেল।

বড় রান তাড়া করতে নেমে ২ রানে আটকে যায় হাশিম আমলা। পাকিস্তানি পেসার আমিরের বলে এল বি ডব্লিউ হন তিনি। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ডি কক ও ডু প্লেসিসের ৮৭ রানের জুটিতে ঘুরে দাঁড়ায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

এরপরই ১২ রানের ব্যাবধানে ডি কক(৪৭) ও মারকামের (৭) উইকেট হারায় প্রোটিয়ারা। দলীয় ১৩৬ রানে ডু প্লেসিকে নিষ্কৃতি দেন আমির। ডু প্লেসিসের ব্যাট থেকে আসে দলীয় সর্বোচ্চ ৬৩ রান।

মিডল অর্ডারে ডুসেন ৩৬ ও মিলার ৩১ রান করেন। যা আফ্রিকাকে কিছুটা হলেও লড়াইয়ে রেখেছিল। ক্রিস মরিসের ব্যাট থেকে আসে ১৬ রান। তবে অন্যদের মধ্যে ব্যতিক্রম ছিলেন ফেললুকাওয়ে। তিনি ৩২ বল থেকে ৪৬ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন। যা পরাজয়ের ব্যবধান কমিয়েছে মাত্র। নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৯ উইকেট হারিয়ে ২৫৯ রানে শেষ হয় দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস।

পাকিস্তানের হয়ে বল হাতে আমির ৪৯ রানে নেন ২টি উইকেট। সাদাপ খান ৫০ ও রিয়াজ ৪৬ রানে ৩টি করে উইকেট নেন।

চলতি আসরে পাকিস্তান ৬ ম্যাচ থেকে দুই ম্যাচ জিতে সাত পয়েন্ট অর্জন করলো। অন্যদিকে সাত ম্যাচ খেলেও আফ্রিকার জয় একটিতে।

মন্তব্য: