টুর্নামেনেটের শীর্ষ দল হিসেবে গ্রুপ পর্বের খেলা শেষ করেছিলো ভারত।কিন্তু সেমিফাইনলের নকআউটে চারে থাকা নিউজিল্যান্ডের কাছে হেরে বিদায় মানতে পারছেন না কোহলি।

সেমিফাইনালে ২৪০ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে যেন মুদ্রার উল্টা পিঠ দেখতে শুরু করে ভারত। প্রথম ১০ ওভারেই ২৪ রানে ৪ উইকেট নেয়। টপ অর্ডারের ব্যার্থতা মানে পুরো টিমের ব্যর্থতা এমনটাই হয়ে আসছে ভারতের সাথে। কেননা রোহিত, কোহলি, ধাওয়ান, রাহুলি যে তাদের প্রধান ভরসার জায়গা সেটা আবারো প্রমান হলো। যদিও জাদেজা ধোনির চেষ্টায় কিছুটা আশা জেগেছিলো জয়ের তবে সে আশা আশা পর্যন্তই থেকে গেছে। আর সে জন্যই পুরো টুর্নামেন্টে মাত্র এক ম্যাচ হারা কোহলি মানতে পারছেন না এমন বিদায়।

কোহলি বলেন, ‘পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকে একটি ম্যাচে আপনি খারাপ করবেন এবং টুর্নামেন্ট থেকে বাদ পড়ে যাবেন… কিছু করার নেই, মেনে নিতে হবে। পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থাকা হয়ত অন্য কোনো অর্থই প্রকাশ করে। এই ব্যাপার নিয়ে ভাবা উচিৎ, বিশেষত এই টুর্নামেন্টের গুরুত্বের কথা মাথায় রেখে।

’ তিনি বলেন, ‘সেমিফাইনালে হেরে গেলে আপনি এর আগে কতটা দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করেছেন সেটির কোনো মূল্যই থাকছে না। অথচ লিগে আপনিই ছিলেন সেরা। আমি খুবই হতাশ। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে আমরা ভালো খেলেছি। কিন্তু ৪৫ মিনিটের বাজে ক্রিকেটই আমাদের বিদায় করে দিল।’

কোহলির কথার সুরে যেন ভাসছে আইপিএল এর কোয়ালিফায়ারের মত বিশ্বকাপের কোয়ালিফার হোক। পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ দুদল ফাইনাল খেলার জন্য অন্তত দুইটা সুজোগ পাক। কেননা ২০১৫ বিশ্বকাপেও তারা সেমিতে হেরেছিলো অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে।

শুনা যাচ্ছে তাদের কথাতেই এবারের গ্রুপ পর্বে সব টিমের সাথে খেলার নিয়ম করা হয়েছে নইলে কোয়ার্টার ফাইনালের নক আউটেও বাদ পরতে পারত যে কোন দল। এমনকি কোহলির ইন্ডিয়াও। সুবিধা যদি পাওয়া যায় তবে নিতে সমস্যা কি। তিন মোড়লের এক মোড়ল বলে কথা। হয়তো আইপিএল এর মত কোয়ালিফাইং সিস্টেম পেতেও আর বেশি দেরি করতে হবেনা।

মন্তব্য: