শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের শেষটিতে ১২২ রানের বড় ব্যবধানে হারলো বাংলাদেশ। লঙ্কানদের করা ২৯৪ রানের জবাবে ১৭২ রানে অলআউট হয় বাংলাদেশ। ফলে সিরিজে ৩-০ হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জা পেলো বাংলাদেশ।

এর আগে প্রায় চার বছর আগে ২০১৫ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল বাংলাদেশ দল। এটি শ্রীলঙ্কার কাছে বাংলাদেশের পঞ্চম ও সবমিলিয়ে ২৫তম হোয়াইটওয়াশ। অন্যদিকে চার বছর পর ঘরের মাটিতে ওয়ানডে সিরিজ জয় ও হোয়াইটওয়াশ করার স্বাদ পেলো শ্রীলঙ্কা।

শ্রীলঙ্কার দেওয়া ২৯৫ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে বাংলাদেশ। ২৯ রানের ভেতরে প্যাভিলনে ফিরে যান দুই ওপেনার। তামিম ২ ও এনামুল হক বিজয় করেন ১৪ রান।

দ্বিতীয় উইকেটে ব্যাট করতে নামা সৌম্য একপ্রান্ত আগলে রাখলেও বাকিরা কেউই তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি। মুশফিক ফেরেন ১০ রানে। এছাড়া মিঠুন, মাহমুদুল্লাহ, সাব্বির কিংবা মিরাজ কেউই দুই অঙ্কের ঘরে রান তুলতে পারেননি।

ইনিংসের ৩২তম ওভারে সৌম্য ৮৬ বল থেকে ৬৯ রান নিয়ে বোল্ড আউট প্যাভিলনে ফিরে গেলে অষ্টম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। সৌম্যর ইনিংসটিতে ৫টি চার ও ১টি ছক্কার মার ছিলো।

শেষদিকে বাংলাদেশের পরাজয়ের ব্যবধানটা কমান তাইজুল ইসলাম। ২৮ বল থেকে ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ৩৯ রানের অপরাজিত থাকেন তিনি। তার ইনিংসটিতে ৫টি চার ও ১টি ছক্কার মার ছিলো।

তাকে সঙ্গ দেওয়া রুবেল হোসেন ব্যক্তিগত ২ রানে রান আউট হলে ৩৬ ওভারে ১৭২ রানের স্কোরে অলআউট হয়।

শ্রীলঙ্কার হয়ে শানাকা ৩ টি উইকেট নেন। রাজিথা ও লাহিরু কুমারা ২টি করে উইকেট নেন। এছাড়া ধনঞ্জয় ও ডি সিলভা ১টি করে উইকেট নেন।

মন্তব্য: