চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনার বিপক্ষে জয় নিয়ে কোপা আমেরিকার ফাইনালে পৌঁছাল ব্রাজিল। গত তিন আসরে কোপায় চরমভাবে ব্যার্থতার পরিচয় দিয়েছে ব্রাজিল। ব্যার্থতা ভুলতে এবার ঘরের মাঠে খেলতে নেমেছে তারা। এর আগে ২০১১ ও ২০১৫ সালে কোয়ার্টার ফাইনাল পর্যন্ত যেতে পারলেও ২০১৬ আসরে গ্রুপ পর্ব থেকেই বাদ পড়ে তারা।

শেষ পর্যন্ত নিজেদের মাঠে বেলো হরিজন্তের মিনেইরো স্টেডিয়ামে চির প্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনাকে ২-০ গোলে হারিয়ে ২০০৭ সালের পর ফাইনালের টিকিট নিশ্চিত করলো ব্রাজিল।

আজ বুধবার ভোর ৬.৩০ মিনিটে শুরু হওয়া ম্যাচে লিওনেল মেসিদের বিপক্ষে ২-০ গোলে জয় পেয়েছে স্বাগতিকরা। একটি করে গোল দিয়েছেন গ্যাব্রিয়েল জেসুস ও রর্বাতো ফিরমিনো।

ঘরের মাঠের সুবিধা কাজে লাগিয়ে ম্যাচের ১৯ তম মিনিটেই ম্যানচেস্টার সিটির তারকা ফরোয়ার্ড ব্রাজিলিয়ান স্টাইকার গ্যাব্রিয়েল জেসুসের দারুন এক গোলে আর্জেন্টিনাকে পেছনে ফেলে ব্রাজিল। সুযোগ পেয়েও আর্জেন্টিনা সে গোল শোধ করতে না পারায় ১-০ তে প্রথমার্ধ শেষ করে ব্রাজিল।

গোলটির জন্য জেসুস যতটানা প্রশংসার দাবিদার তার চেয়ে বেশি দাবিদার ব্রাজিলের অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার দানি আলভেসের দুর্দান্ত ড্রিবলিং। ব্রাজিলের অধিনায়ক দানি আলভেজ আর্জেন্টিনার দুই ডিফেন্ডারকে কাটিয়ে বল রবার্তো ফিরমিনোর উদ্দেশ্যে বাড়িয়ে দিলে ফিরমিনো বল রিসিভ না করে সরাসরি নিচু পাস দিয়ে ডি-বক্সে ফাঁকায় দাঁড়ানো গ্যাব্রিয়েল জেসুসের উদ্দেশ্যে বাড়িয়ে দেন। আর সুযোগ কাজে লাগাতে দেরি করেননি জেসুস।

বল দখলের লড়াইয়ে ব্রাজিল আর্জেন্টিনা প্রায় সমান সমান হলেও ভাগ্য আজ মেসিদের পক্ষে ছিলোনা। কারণ দারুন সব আক্রমণ করার পরও গোল পায়নি তারা বরং দুইবার বারে লেগে ফিরে এসেছে বল। অন্যদিকে নেইমার বিহীন ব্রাজিল নিখুঁত ফিনিশিংয়ের মাধ্যমে ম্যাচের দুই অর্ধে দুই গোল করতে সক্ষম হয়েছে।

ম্যাচের ৭১ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে সেলেসাওরা। এবার জেসুস যেন নিজের গোলের প্রতিদান দিলেন ফিরমিনোকে। জেসাসের দেয়া পাস থেকে লিভারপুল স্ট্রাইকার ফিরমিনো গোল করতে ভুল করেননি।

মাঝমাঠ থেকে সম্পূর্ণ একার নৈপুণ্যে আর্জেন্টিনার রক্ষণকে বোকা বানিয়ে ডি-বক্সে ঢুকে যান জেসুস। সুযোগ পেয়েই ডি-বক্সে ফাঁকায় দাঁড়ানো ফিরমিনোর উদ্দেশ্যে বাড়িয়ে দেন বল। বল পেয়ে সহজেই ফাঁকা জালে বল প্রবেশ করান লিভারপুল তারকা ফিরমিনো।

শেষ পর্যন্ত উত্তেজনাপূর্ণ সুপার ক্লাসিকোতে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে তিতের শিষ্যরা। ২০০৭ সালে এই আর্জেন্টিনার বিপক্ষেই ফাইনালে জয়ের পর একযুগ পর দক্ষিণ আমেরিকার মহাদেশীয় লড়াইয়ের ফাইনালে উঠল পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। চলতি আসরে এখন পর্যন্ত পাঁচ ম্যাচ খেলেও কোনো গোল হজম করেনি তারা।

মন্তব্য: