ধারাবাহিকভাবে ক্রিকেটের বড় আসরগুলোতে ভালো করে আসছে শ্রীলঙ্কা। বিশ্বকাপ শিরোপা দেখতে পেয়েছিলো ১৯৯৬ সালে। তারপর ফাইনাল খেলেছে ২০০৭ ও ২০১১ বিশ্বকাপে।

সাঙ্গাকারা, জয়বার্ধনা ও দিলশানের ত্রয়ী পারফরম্যান্সে শ্রীলঙ্কা ২০১১ বিশ্বকাপের অন্যতম দাবিদার হলেও টেন্ডুলকার, যুবরাজ, ধনীদের কাছে ফাইনাল হেরে রানার্সআপ হয়েই ক্ষান্ত দিতে হয় তাদের। পরের বিশ্বকাপ ২০১৫ তেও তাদের পারফরম্যান্স খুব একটা খারাপ ছিলনা। কিন্তু ২০১৯ বিশ্বকাপে যেন এক ব্যর্থতার প্রতিমূর্তি হয়েই ছিল শ্রীলংকা।

এই আসরে ইংল্যান্ডের সাথে ম্যাচ জয় ছাড়া বড় কোনো সাফল্য দেখতে পায়নি শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল। সেটাও সম্ভব হয়েছে অভিজ্ঞ মালিঙ্গার জন্যে। যেখানে বিশ্বকাপ ব্যর্থতার প্রধান কারণ অনভিজ্ঞতা।

কিন্তু সব কাটাছেড়া বিশ্লেষণ শেষে ব্যর্থতার দায়ভার নিতে হচ্ছে কোচ চান্ডিকা হাথুরুসিংহে ও বাকি কোচিং স্টাফদের। সামনে শ্রীলঙ্কা বাংলাদেশ সিরিজ শেষে হাথুরুসিংহে সহ সব কোচিং স্টাফদের পদত্যাগ করতে বলেছেন দেশটির ক্রীড়া মন্ত্রী হারিন ফার্নান্দো।

যদি তারা আবারো শ্রীলঙ্কান টিম ম্যানেজমেন্ট এর সাথে থাকতে চায় তবে নতুন সব নিয়ম মেনে আবেদন করতে হবে তাদের। আর বোর্ড চাইলে তারা থেকেও যেতে পারে। তবে বোর্ড তাদের রাখলে পদত্যাগ করার নির্দেশ দিত না। এখন দেখার বিষয় কে হতে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কার নতুন কোচ নাকি পুরাতন স্টাফরাই আবার চুক্তি বদ্ধ হবেন!

মন্তব্য: