নেপালে এভারেস্ট প্রিমিয়ার লিগে (ইপিএল) ভাইরাহাওয়া গ্লাডিয়েটর্সের হয়ে খেলছেন তামিম ইকবাল। প্রথম ম্যাচে ব্যাট করতে নেমে একটি করে ছক্কা ও চার মারলেও তেমন জমাতে পারেননি নিজের ব্যাটিং। ১৩ বলে ১২ রান করা তামিম রামনরেস গিরির বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরেছেন সাজ ঘরে।

দ্বিতীয় ম্যাচে ১৭৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে আবারো ব্যাট হাতে ব্যর্থ এই বাংলাদেশী ওপেনার। শুরু থেকেই ধীরগতিতে ব্যাট করতে থাকা তামিম ১৬ বলে ১৪ রান করে ধাকারের বলে ক্যাচ তুলে দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। দ্বিতীয় ম্যাচে তিনটি বাউন্ডারি মেরেছেন বাঁহাতি এই ওপেনার।

নিজেকে ফিরে পাওয়ার মিশনে তামিম ব্যর্থ হলেও দলকে হার থেকে রক্ষা করেছেন শ্রীলংকান ব্যাটসম্যান উপুল থারাঙ্গা। তার অপরাজিত হাফসেঞ্চুরিতে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচটি শেষ পর্যন্ত টাই হয়।

এর আগে নেপালের কীর্তিপুরে ত্রিভুবন ইউনিভার্সিটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট গ্রাউন্ডে সানদুন ভিরাক্কোডির হাফসেঞ্চুরিতে ভর করে ললিতপুর ৭ উইকেটে ১৭৭ রান করে। জবাবে থারাঙ্গার ঝড়ো ইনিংসে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ভাইরাহাওয়াও করে ১৭৭ রান। আলোক স্বল্পতার কারণে সুপার ওভার হয়নি। তাই ম্যাচটি টাই ঘোষণা করা হয়।

১৭৮ রানের কঠিন লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে তামিম ও প্রদীপ আইরি শুরুটা ভালো করতে পারেননি। ভাইরাহাওয়াকে এতদূর নিয়ে আসার পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা থারাঙ্গার। টানটান উত্তেজনার এই ম্যাচের শেষ বলে৭ রান প্রয়োজন ছিল। শেষ বলে ছক্কা হাকিয়ে টাই করে দলকে হারের হাত থেকে বাঁচান থারাঙ্গা। ৪৪ বলে ৬ চার ও ৩ ছক্কায় অপরাজিত ৬৭ রানের ইনিংস খেলেছেন তিনি।