নিজের হাড়ির খবর যেন নিজেই প্রকাশ করলেন। পাকিস্তানি একটা টিভি শো তে এসে নানা প্রশ্নের মধ্যে বিবাহ পরবর্তী সম্পর্কের কথা জানালেন পাকিস্তানের সাবেক তারকাখ্যাত অলরাউন্ডার আব্দুল রাজ্জাক।

বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের কথা প্রকাশ্যে স্বীকার করে নিলেন পাকিস্তানের এই অলরাউন্ডার। এক টিভি শোয়ের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত হয়ে গিয়ে জানিয়ে দিলেন, বিবাহের বাইরেও তার একাধিক সম্পর্ক ছিল। একটা কিংবা দুটো নয়, কমপক্ষে পাঁচটা থেকে ছটা সম্পর্কে তিনি আবদ্ধ ছিলেন। পাশাপাশি তিনি বলেন, এর মধ্যে একটা সম্পর্কের মেয়াদ তো দেড় বছর গড়িয়ে গিয়েছিল। শোয়ের অ্যাঙ্কর আরও স্পষ্ট করে জানার উদ্দেশ্যে জিজ্ঞাসা করেন, বিয়ের পরে কী হয়েছিল? রজ্জাকের স্পষ্ট স্বীকারোক্তি, বিয়ের পরেই সম্পর্কের সূত্রপাত হয়েছিল।

বিশ্বকাপের শুরু থেকেই ছিলেন সংবাদমাধ্যমের শিরোনামে। তখন সমালোচনা নয় বরং প্রশংসাই কুড়িয়েছিলেন তিনি। চেয়েছিলেন ভারতীয় অলরাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়ার কোচ হতে। তিনি হার্দিক পাণ্ডিয়াকে সাহায্যের প্রস্তাব দিয়ে বলেছিলেন, হার্দিককে যদি তিনি কোচিং করান, তাহলে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার হয়ে উঠবে ও।

ঘটনাচক্রে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা আবার হার্দিক পাণ্ডিয়া এবং তাকে সাহায্য করতে প্রস্তুত থাকা আবদুল রজ্জাক- দুই অলরাউন্ডারের মধ্যেই মিল খুঁজে পেয়েছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় আবার রজ্জাককে হার্দিকের ‘গুরু’ বলেও সম্বোধন করা হয়েছে। কফি উইথ করণ-এ গিয়ে হার্দিকের খুল্লমখুল্লা বক্তব্য সমালোচনার জন্ম দিয়েছিল। তারপরে জাতীয় দল থেকেও বাদ পড়তে হয়েছিল তাকে।

মন্তব্য: