দ্বাদশ আইপিএল আসরে হায়দরাবাদের পর টানা দ্বিতীয় জয় তুলে নিলো কলকাতা নাইট রাইডার্স। বুধবার রাতে ঘরের মাঠ ইডেনে পাঞ্জাবকে ২৮ রানে হারিয়ে টেবিলের শীর্ষে পৌছে গেল তারা। অন্যদিকে জয় দিয়ে আসর শুরু করা পাঞ্জাব দ্বিতীয় ম্যাচেই হোঁচট খেল।

ইডেনে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন কিংস একাদশ পাঞ্জাবের অধিনায়ক রবিচন্দ্রন অশ্বিন। কলকাতার হয়ে ওপেন করতে নামেন ক্রিস লিন ও সুনীল নারিন। কিন্তু তাঁরা বেশিক্ষণ ভরসা দিতে পারলেন না দলকে। ৫ ওভারের মধ্যেই প্যাভেলিয়নে ফিরে যান দুই ওপেনার। ক্রিস লিন ১০ বলে করলেন ১০ রান। সুনীল নারিন ৯ বলে ২৪ রান করে কিছুটা রানের গতি বাড়ালেন ঠিকই কিন্তু টিকে থেকে ভরসা দিতে পারলেন না। দু’জনকে ফেরান শামি ও ভিলজোয়েন। পাঁচ ওভারের কেকেআর ৪৪-২ হয়ে যায়।

তৃতীয় উইকেটে দলের হাল ধরেন রবিন উথাপ্পা ও নীতিশ রানা। পাঁচ ওভারে ৪৪-২ থেকে কলকাতার রানকে উথাপ্পা ও নীতিশ নিয়ে যান ১৪ ওভারে ১৪৬-২-এ। ৩৪ বলে ৬৩ রান করে শেষ পর্যন্ত আউট হন নীতিশ রানা।

উথাপ্পা লড়াই চালিয়ে যান আন্দ্রে রাসেলকে নিয়ে। হায়দরাবাদের পর আবারো কলকাতার হাতে ব্যাট হাতে একই রকমরে ইনিংস খেলেন রাসেল। ১৭ বলে ৪৮ রান করে শেষ বেলায় আউট হন রাসেল। ৫০ বলে ৬৭ রান করে অপরাজিত থাকেন রবিন উথাপ্পা। ২০ ওভারে কলকাতা থামে ২১৮-৪-এ।

পাঞ্জাবের সামনে ২১৯ রানের রেকর্ড। জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ফিরে যান পাঞ্জাবের লোকেশ রাহুল। পাঁচ বল থেকে করেন মাত্র এক রান। ১৩ বলে ২০ রান করে আউট হন ক্রিস গেল। ১৩ বলে ১৩ রান করে আউট হন সরফরাজ আহমেদ। বড় রানের লক্ষ্যে নেমে নয় ওভারের শেষে তিন উইকেট হারিয়ে ৭০ রান করেছে পাঞ্জাব। সেখান থেকেই খেলার হাল ধরেন মাযাঙ্ক আগরওয়াল ও ডেভিড মিলার।

৩৪ বলে ৫৮ রান করে আউট হন আউট হন মায়াঙ্ক। হাফ সেঞ্চুরি করেন ডেভিড মিলারও। শেষ ওভারে পাঞ্জাবের দরকার ছিল ৪২ রান। যা কোনওভাবেই সম্ভব ছিল না। হয়ওনি। ২০ ওভারে চার উইকেট হারিয়ে ১৯০ রানে শেষ হয় পাঞ্জাবের ইনিংস। ৫৯ রান করে ডেভিড মিলার ও ৩৩ রান করে মনদীপ সিং অপরাজিত থাকেন।

মন্তব্য: