বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলার লক্ষ্য নিয়ে ইংল্যান্ডে গিয়েছিলো বাংলাদেশ দল। শুরুটা ভালো হলেও শেষের দিকে খেই হারিয়ে ফেলে তারা। গ্রুপ পর্বে আট নম্বর দল হিসেবে আসর শেষ করে বাংলাদেশ। কেন বাংলাদেশ দলের এমন পরিনতি তা নিয়ে কম কাটা ছেড়া হয়নি।

পুরো আসরে ব্যাট ও বল নিয়ে দুদান্ত পারফর্ম করা সাকিব আল হাসান এ নিয়ে দেশের একটি জাতীয় দৈনিককে ব্যাখা দিয়েছেন। জানিয়েছেন বাংলাদেশে পিছিয়ে গেছে মাশরাফির পারফরম্যান্সের কারণে।

সাকিব আল হাসান বলেন, ‘আমি সব সময়ই বিশ্বাস করেছি যে এবার অনেক দূরে যাওয়া সম্ভব। হয়তো সবার সাহায্য পেলে আমরা সেমিফাইনালেও চলে যেতাম। অনেক কারণে অনেক সময় সবকিছু ঠিকঠাক হয় না। কোনো খেলোয়াড়ের পারফরম্যান্স ভালো না হলে সে দলের চেয়ে নিজেকে নিয়ে বেশি ভাবতে শুরু করে। তখন সমস্যা হয়ে যায়। আমার মনে হয়, মাশরাফি ভাইয়ের ক্ষেত্রেও এটাই ঘটেছে। যেহেতু অধিনায়ক পারফর্ম করছিল না, এটা বড় সমস্যা। তার জন্যও, দলের জন্যও। অধিনায়ককে পারফর্ম করতে হবে, এর কোনো বিকল্প নেই। ওই জায়গাটাতে আমরা অনেক বেশি পিছিয়ে গেছি। তারপরও অসম্ভব ছিল না। বিশ্বকাপে আমরা শুরুটা করি খুবই ভালো। কিন্তু পরের দিকে তা ধরে রাখতে পারিনি।’

মাশরাফি ৮ ম্যাচে নিয়েছেন মাত্র এক উইকেট। তার পারফরম্যান্স অধিনায়কসুলভ ছিল না। এদিকে সাকিব ব্যাট হাতে ৬০৬ রান এবং বল হাতে ১১ উইকেট নিয়েছেন।

বিশ্বকাপে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায়ের পরে দেশে ফেরার পর সাকিব ও মাহমুদুল্লাহর মধ্যে কুৎছা রটেছিল? বিদেশি একটি সংবাদমাধ্যমের খবরে দাবি করা হয়েছিল, মাহমুদউল্লাহকে বাদ দিতে চেয়েছিলেন সাকিব। এই বিষয়টিরও খেলাসা করেন সাকিব।

সাকিব বলেন, ‘এখানে লুকোচুরির কিছু নেই। যে এই বিষয়টা বলেছে বা এই সংবাদ করেছে, তিনি কাজটা ঠিক করেননি। বিশ্বকাপের সময় সাইফউদ্দিনকে নিয়ে একটা সংবাদ ছাপা হলো। ও নাকি বড় দলের বিপক্ষে ভয়ে খেলে না। এসব খবর কি দলের জন্য ভালো? দলে যারা ছিল তারা জানে এই নিউজ কে করিয়েছে। সাইফউদ্দিন কি খেলেনি? একটা দলকে মানসিকভাবে ভেঙে দেওয়ার জন্য এসবই যথেষ্ট।’

মন্তব্য: