সবকিছু ঠিক থাকলে আসন্ন ইংল্যান্ড বিশ্বকাপেও বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা। এ নিয়ে দ্বিতীয়বার বাংলাদেশকে বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে নেতৃত্ব দিচ্ছেন মাশরাফি। প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে অনন্য এ কীর্তি যোগ হলো মাশরাফির নামের পাশে।

বাংলাদেশ প্রথমবার বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছিল ১৯৯৯ সালে। এরপর সবশেষ ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে খেলেছে বাংলাদেশ। সংখ্যার বিচারে সব মিলিয়ে ৫টি বিশ্বকাপে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশ দল। প্রতিবারই বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলের নেতৃত্ব ভার উঠেছে ভিন্ন ভিন্ন ক্রিকেটারের কাঁধে।

১৯৯৯ সালে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন আমিনুল ইসলাম বুলবুল। সেই আসরে ৫টি ম্যাচ খেলে দুটি জয় পেয়েছিল টাইগাররা। এই আসরেই পাকিস্তানের বিপক্ষে স্বরণীয় জয় পেয়েছিল তারা।

চার বছর পর বাংলাদেশ ২০০৩ সালের বিশ্বকাপে অংশ নেয়। সে আসরে খালেদ মাসুদ পাইলটের নেতৃত্বে ৬টি ম্যাচ খেলেছিল। এই আসরের শুরুতেই কেনিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ হারের লজ্জা পায় বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ বৃষ্টিতে পন্ড হওয়া ছাড়া বাকি সকটি ম্যাচেই বাজে ভাবে হারে তারা।

২০০৭ সালে বাংলাদেশ দল বেশ সমৃদ্ধ ছিল। মাশরাফি ছাড়াও এ সময় দলে ছিলেন সাকিব, তামিম, মুশফিক। এই আসরে বাংলাদেশ বিশ্বদরবারে নিজেদের নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেয়। হাবিবুল বাশারের নেতৃত্বে বাংলাদেশ সেবার প্রথম ম্যাচেই হারায় ভারতকে। এছাড়া প্রথমবারের মতো সুপার এইটে বাংলাদেশ হারায় দক্ষিণ আফ্রিকাকে। এই আসরে ৯টি ম্যাচ খেলে ৩টি জয় পায় টাইগাররা।

পরবর্তীতে ২০১১ সালের বিশ্বকাপের আসর বাংলাদেশ স্বাগতিক দল হয়েও পায়ের ইনজুরির জন্য বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকে ছিটকে যান মাশরাফি। তার অনুপস্থিতিতে অধিনায়কত্বের দায়িত্ব পান সাকিব আল হাসান। সাকিবের নেতৃত্বে ৬ ম্যাচে ৩ জয় পায় বাংলাদেশ। হারিয়েছিল ইংল্যান্ড, আয়ারল্যান্ড ও নেদারল্যান্ডসকে।

সবশেষ ২০১৫ সালে বাংলাদেশ দলকে প্রথমবারের মতো বিশ্বকাপে নেতৃত্ব দেওয়ার দায়িত্ব আসে মাশরাফির কাঁধে। মুশফিকের কাছে থেকে দায়িত্ব নিয়ে প্রথম অ্যাসাইনমেন্টে মাশরাফি জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করে ৫-০ ব্যবধানে। এরপর বিশ্বকাপে ইংল্যান্ড, আফগানিস্তান ও স্কটল্যান্ডকে হারিয়ে এবং অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পয়েন্ট ভাগাভাগি করে বাংলাদেশ নাম লিখায় কোয়ার্টার ফাইনালে। নক আউটে ভারতের কাছে হেরে আসর শেষ করে বাংলাদেশ।

আগামী ৩০ মে ইংল্যান্ডে পর্দা উঠছে দ্বাদশ বিশ্বকাপের। এই আসরে মাশরাফির নেতৃত্বে ১৫ সদস্যের দল ঘোষণা করেছে বিসিবি। আগামী ২ জুন শুরু হবে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ মিশন। এই ম্যাচ দিয়েই বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে দুইটি বিশ্বকাপে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার গৌরব অর্জন করতে যাচ্ছেন মাশরাফি বিন মর্তুজা।

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ স্কোয়াড

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, লিটন কুমার দাস, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন ও আবু জায়েদ রাহি।

বিশ্বকাপ স্কোয়াডের পাশাপাশি নির্বাচকরা ইয়াসির আলি রাব্বি এবং নাইম হাসানকে দলে রেখে ঘোষণা করে দিয়েছেন আয়ারল্যান্ড স্কোয়াডও।

ত্রিদেশীয় সিরিজে বাংলাদেশের স্কোয়াড

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, লিটন কুমার দাস, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন, সাব্বির রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, আবু জায়েদ রাহি, ইয়াসির আলি রাব্বি এবং নাইম হাসান।

মন্তব্য: