বিশ্বকাপের ১২তম আসরে বৃষ্টি যেন অভিশাপ হয়ে দেখা দিয়েছে। এমনকি বাংলাদেশও এই বৃষ্টির ফাঁদে ধরা খেয়েছে। পরিত্যাক্ত হয়েছে দুর্বল শ্রীলংকার বিপক্ষের বাংলাদেশের ম্যাচ। টুর্নামেন্টের মাঝপথেই ম্যাচ পরিত্যক্তের রেকর্ড গড়া এই বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত তিনটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়েছে বৃষ্টির কারণে। আর তাইতো আইসিসিকে অনেকেই দোষ দিচ্ছেন বৃষ্টির মৌসুমে বিশ্বকাপ আয়োজন নিয়ে।

সবাই জানে ইংল্যান্ডে সবসময়ই জুন মাসে বৃষ্টি হয়। তারপরও আইসিসি কেনো বিশ্বকাপ আয়োজন করলো এই মাসেই? ভারতীয় এক সংবাদ মাধ্যম দাবি করেছে, আইপিএলের কারণেই বিশ্বকাপ পিছিয়ে নিয়ে আসা হয়েছে জুন মাসে।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) প্রভাব বিশ্ব ক্রিকেটে কেমন তা সবাই জানে। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঘোষিতভাবে বন্ধ থাকে আইপিএল মৌসুমে। কিন্তু তাই বলে বিশ্বকাপের মতো বড় আসরও পিছিয়েছে আইপিএলের জন্য?

ভারতীয় সেই সংবাদ মাধ্যম তাদের বক্তব্যের ব্যাপারে উপযুক্ত যুক্তিই উপস্থাপন করেছে। ২০১১ সালে বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ১৯ মার্চ শুরু হয়েছিল আর শেষ হয়েছিল ২ এপ্রিল। এমনকি ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপও হয়েছিলো ফ্রেব্রুয়ারি- মার্চ মাসে। তাহলে জুন ও জুলাই মাসে কেন ইংল্যান্ডে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হচ্ছে! মার্চ মাস ইংল্যান্ডের শুকনো মৌসুমগুলোর একটি হওয়ায় ইংল্যান্ডের ঘরোয়া লিগগুলোও শুরু হয় মার্চের শেষ কিংবা এপ্রিলের শুরুতে। আইসিসি চাইলেই বিশ্বকাপ দুই-এক মাস এগিয়ে নিয়ে আসতে পারতো।

আর তাইতো চাইলেই মার্চ-এপ্রিলে বিশ্বকাপ আয়োজন করতে পারতো আইসিসি। এসব যুক্তি দেখিয়ে ভারতীয় সেই গণমাধ্যম দাবি করেছে আইপিএলের কারণেই জুন-জুলাই মাসকে বিশ্বকাপের জন্য বেছে নিয়েছে আইসিসি।

মন্তব্য: