১৩ ফেব্রুয়ারি বুধবার থেকে নিউজিল্যান্ড ও বাংলাদেশের মধ্যকার তিন ম্যাচ ওয়নাডে সিরিজের প্রথমটি শুরু হচ্ছে নেপিয়ারে। বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের ইনজুরিতে মানসিক দিক থেকে আগে থেকেই কিছুটা ব্যাকফুটে বাংলাদেশ দল। পরিসংখ্যানও সেই কথাই বলছে।

এখন পর্যন্ত সব ফরম্যাট মিলিয়ে ৩১ ম্যাচ মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ড। যেখানে ২১টি জয় নিয়ে এগিয়ে আছে নিউজিল্যান্ড। আর বাকি ১০ টি জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। তবে আশংকার কথা হলো এখন পর্যন্ত নিউজিল্যান্ডের মাটিতে কখনোই কোনো ম্যাচ জেতা হয়নি বাংলাদেশের। এই ৩১ ম্যাচের মধ্যে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী ব্যাটসম্যানদের তালিকায় শীর্ষ ১০ জনের মধ্যে ছয় জনই বাংলাদেশের।

তবে অস্বস্তির খবরও আছে। শীর্ষ দশ ব্যাটসম্যানের মধ্যে তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা সাকিব আল হাসানকে ইনজুরির জন্য পাচ্ছে না বাংলাদেশ। আবার তালিকায় সপ্তম স্থানে থাকা কায়েস ও নবম স্থানে থাকা আশরাফুল নেই স্কোয়াডে।

বাকি অন্য তিন ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। আসন্ন সিরিজে আঙ্গুুলের ইনজুরির কারনে খেলতে পারছেন না সাকিব। তাই সাকিবকে ছাড়িয়ে যাবার সুযোগ থাকছে তামিম-মুশফিক ও মাহমুদউল্লাহর। দু’দলের লড়াইয়ে সবার উপরে আছেন নিউজিল্যান্ডের রস টেইলর।

বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড ওয়ানডে দ্বিপক্ষীয় সিরিজে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী শীর্ষ দশ ব্যাটসম্যানঃ

১। রস টেইলরঃ ২০ ম্যাচে ৫২.৪০ গড়ে ৭৮৬ রান।

২। সাকিব আল হাসানঃ ২১ ম্যাচে ৩০.২৬ গড়ে ৫৭৫ রান

৩। তামিম ইকবালঃ ১৯ ম্যাচে ২৭.৮৯ গড়ে ৫৩০ রান

৪। মুশফিকুর রহিমঃ ২২ ম্যাচে ২৮.৬৬ গড়ে ৫১৬ রান

৫। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদঃ ১৯ ম্যাচে ৩৫.৭৮ গড়ে ৫০১ রান

৬। নেইল ব্রুমঃ ৯ ম্যাচে ৫৮.০০ এভারেজে ৪৬৪ রান

৭। ইমরুল কায়েসঃ ১২ ম্যাচে ৩৪.৪১ এভারেজে ৪১৩ রান

৮। টম লাথমঃ ৭ ম্যাচে ৪৯.১৪ এভারেজে ৩৪৪ রান

৯। মোহাম্মদ আশরাফুলঃ ১৫ ম্যাচে ২৩.৯২ এভারেজে ৩৩৫ রান

১০। ব্রেন্ডন ম্যাককলামঃ ২১ ম্যাচে ১৯.৪৭ গড়ে ৩৩১ রান

মন্তব্য: