প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে ডাবল সেঞ্চুরি করা সৌম্য সরকার বাহবা পাচ্ছেন বাংলাদেশি ওপেনার তামিম ইকবালের। তামিম বলছেন, আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের আগে রানে ফেরায় সৌম্যকে আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে।

তামিমের বিশ্বাস, বাংলাদেশ দল আয়ারল্যান্ড ও ইংল্যান্ডে সম্পূর্ণ ভিন্ন কন্ডিশনে খেললেও ঢাকা লীগে বড় রান করার আত্মবিশ্বাস সৌম্যকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সাহায্য করবে।

‘যদিও আমরা খেলবো একেবারেই ভিন্ন একটা কন্ডিশনে, ভিন্ন বোলিং আক্রমণের বিপক্ষে, তবুও রান করাটা সবসময়ই ইতিবাচক। এটা আত্মবিশ্বাস যোগায়। সে কোথায় রান করেছে এটা মুখ্য বিষয় নয়, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে যে সে রান করেছে। ও যদি শেষ দুই ম্যাচে দুইটা সেঞ্চুরি না করে ১০ আর ৫ করে ট্যুরে যেতো, ওর মাথার মধ্যে এক পার্সেন্ট হলেও একটা চাপ থাকতো।

‘কিন্তু এখন ও জানে কিভাবে রান করতে হয়। যখন আপনি রান করেন, তখন আপনি এটা জানেন যে কিভাবে রান করতে হয়। সেটাই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। যখন কারো ফর্ম খারাপ যায়, তখন সে ওইটা ভুলে যায় যে কিভাবে রান করতে হবে। তাই এটা ওর জন্য খুব ইতিবাচক যে সে আয়ারল্যান্ডে যাবার আগে দুটো বড় ইনিংস খেলেছে।‘

বিকেএসপির মাঠে শেখ জামালের বিপক্ষে ঢাকা লীগের শেষ ম্যাচে ১৫৩ বল খেলে ২০৮ রানে অপরাজিত থেকে মাঠ ছাড়েন সৌম্য। ইনিংস জুড়ে ১৪টি চার ও ১৬টি ছক্কা হাঁকান তিনি। লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে সৌম্যর চেয়ে বেশি ছক্কা আছে দুইজনের, অস্ট্রেলিয়ার ডার্সি শর্ট (২৩) ও নামিবিয়ার জেরি স্নাইম্যানের (১৭)। রোহিত শর্মা, এবি ডি ভিলিয়ার্স ও ক্রিস গেইলের আছে সৌম্যর সমান ১৬টি ছক্কা করে।

সৌম্যর রেকর্ডময় ডাবল সেঞ্চুরির প্রশংসায় তামিম বলেছেন, ‘এটা বড় অর্জন, বাংলাদেশী কেউ এই প্রথম ২০০ রান করেছে।‘

লীগের শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে অবিশ্বাস্য ইনিংসের পূর্বাভাস এর আগের ম্যাচেই দিয়েছিলেন তিনি। রূপগঞ্জের বিপক্ষে ৭১ বলে সেঞ্চুরি করে রান খরা কাটান সৌম্য। রূপগঞ্জের বিপক্ষে সেঞ্চুরিটি আরও দীর্ঘ হতে পারত। ৭৯ বলে ১০৬ রান করে ইনিংসের ২৪তম ওভারে আউট হন সৌম্য। কিন্তু পরের ম্যাচে সকল আক্ষেপ মিটিয়ে ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তিনি।

মন্তব্য: