নিজের চেয়ে ১৭ বছরের ছোট এক পুচকে খেলোয়াড়ের কাছে হেরে যে এতটা ভেঙে পড়বেন রজার ফেদেরার, তা কি কেউ ভাবতে পেরেছিলেন? রবিবার অস্ট্রেলীয় ওপেনে হারের পরে ফেদেরারের কথা শুনে মনে হল, এই ব্যর্থতা একেবারেই অসহ্য লাগছে তাঁর। যখন বললেন, ‘‘খুব আফসোস হচ্ছে আমার।’’

মেলবোর্নে এসেছিলেন বছরের প্রথম গ্র্যান্ড স্ল্যামে খেতাব জয়ের হ্যাটট্রিক করার সংকল্প নিয়ে। কিন্তু সেই রাস্তায় যে সবচেয়ে বড় কাঁটা হয়ে উঠবেন কুড়ি বছরের এক গ্রিক তরুণ, তা বোধহয় ভাবতেই পারেননি। গ্র্যান্ড স্ল্যামে এই প্রথম কোনও গ্রিক খেলোয়াড়ের বিরুদ্ধে খেললেন। আর তাতেই হার। আক্ষেপের শেষ নেই সুইস তারকার। ২০ বছর বয়সী টগবগে যুবক সিতসিপাসের কাছে ধরাশায়ী হলেন সর্বোচ্চ গ্রান্ডস্লাম জয়ী খেলোয়াড় ফেদেরার। ৬-৭ (১১-১৩), ৭-৬ (৭/৩), ৭-৫, ৭-৬ (৭/৫) গেমে ফেদেরারকে হারান সিতসিপাস।

মেলবোর্নে ২০১৬-য় নোভাক জেকোভিচের কাছে সেমিফাইনালে হেরেছিলেন তিনি। তার পর থেকে রবিবারের আগে পর্যন্ত টানা সাফল্য পেয়েছেন এখানে। অথচ সেই ফেদেরারই এ দিন এক ডজন ব্রেক পয়েন্ট পেয়েও সবক’টি সুযোগ নষ্ট করেন। কিন্তু কেন এই হার? ফেদেরারে ব্যাখ্যা, ‘‘দ্বিতীয় সেট জিততেই হবে, এটা মাথায় ঢুকে পড়েছিল। কী ভাবে জিতব, সেটা না ভেবে চাপটা নিয়ে নিই। এই জন্যই হেরে গেলাম। এই ধরনের ম্যাচে অনেকগুলো বিষয় একসঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে।’’

যাঁর কাছে এই অঘটনের হার, সেই নতুন তারকা স্তেফানো সিতসিপাসকে নিয়ে তাঁর মন্তব্য, ‘‘এমন একজনের কাছে হারলাম, যে আজ আমার চেয়ে ভাল খেলেছে। ও আজ সারাক্ষণ খেলার মধ্যে ছিল। ঠান্ডা মাথায় খেলেছে। কোনও তরুণ খেলোয়াড়ের পক্ষে মাথা এত ঠান্ডা রাখা মোটেই সোজা নয়। এটাই ওর কৃতিত্ব। ছেলেটা মনে হচ্ছে অনেক দূর যাবে।’’

পরপর ব্রেক পয়েন্টের সুযোগ নষ্ট নিয়ে ফেদেরার বলেন, ‘‘ওই সময় ভাবনা অনুযায়ী খেলতে পারিনি। হপম্যান কাপে স্তেফানোসের বিরুদ্ধে খেলার সময়ও ওকে ব্রেক করতে পারিনি। ওর বিরুদ্ধে রিটার্ন করার সময় আমার কিছু ভুল হচ্ছে, যেটা আমাকে ঠিক করতে হবে।’’

এই ব্যর্থতার জ্বালা মেটাতে এ বার ফরাসি ওপেনেও খেলতে চান ফেডেরার। গত তিন মৌসুমে যেখানে খেলেননি তিনি। বলেন, ‘‘সে রকমই ইচ্ছে আছে। এখন আমি টেনিস থেকে ভরপুর আনন্দ পেতে চাই। এখন আর লম্বা ছুটির দরকার নেই।’’

এই হারের পরে বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে তিন নম্বর থেকে নেমে যাবেন তিনি। অস্ট্রেলীয় ওপেনের ফাইনালের পরে প্রকাশিত বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে যা স্পষ্ট হবে। দু’বছর আগে অস্ট্রেলীয় ওপেনে দুরন্ত প্রত্যাবর্তনের পরে বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে প্রথম দশে ফিরে আসেন ফেডেরার। ২০১৭-র এপ্রিল থেকে পাঁচের নীচে কখনও নামেননি সুইস মহাতারকা।

এদিকে এই প্রথম গ্রিসের কেউ কোনও গ্র্যান্ড স্ল্যাম কোয়ার্টার ফাইনালে উঠলেন। এটা যেমন বেনজির ঘটনা, তেমনই শুনে অবাক হতে পারেন, রজার ফেডেরারকে হারাতে যে প্রস্তুতি নিয়েছিলেন সিতসিপা, তার অনেকটাই জুড়ে ছিল তাঁর ইউটিউব-প্রশিক্ষণ। এই বিখ্যাত সোশ্যাল ওয়েবসাইটে নাগাড়ে ফেদেরারের খেলা দেখে নিজেকে গড়ে তুলেছিলেন গ্রিক তরুণ। ফেদেরারের সেই ক্লিপিংসগুলো মাথায় গেঁথে নিয়ে অবশেষে তাঁকেই হারিয়ে দিলেন সিতসিপা।

সিতসিপা নিজেই কয়েকদিন আগে বিবিসি-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, ‘‘ইউটিউবে দিনরাত রজার ফেদেরারের খেলা দেখেই বড় হয়েছি আমি। ফেদেরারের মুখোমুখি হতে পারলে নিজেকে ধন্য মনে করব’’। রবিবার শুধু মুখোমুখি হওয়াই নয়, ফেদেরারকে চার সেটে হারিয়ে সারা বিশ্বে হইচইও ফেলে দিলেন তিনি। বছরটাই সাফল্যের মধ্যে কেটেছে তাঁর। হারিয়েছেন নোভাক জোকোভিচ, কেভিন অ্যান্ডারসন, আলেকজান্দার জেরেভকে। এ বার ফেদেরারকে। সত্যিই মনে রাখার মতো বছর।

মন্তব্য: