বাংলাদেশ ক্রিকেটে মুশফিকুর রহিম হলেন সবচেয়ে সুশৃঙ্খল ও নিয়মানুবর্তী খেলোয়াড়। তাই তরুণদের আইডল হিসেবে বড় বড় ক্রিকেট বিশ্লেষকরা মুশফিককেই বেছে নিতে বলে।

বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়ে আইসিসির এক সাক্ষাৎকারে মাহমুদউল্লাহকে প্রশ্ন করা হয়েছিল বাংলাদেশ দলে কে সবচেয়ে পরিশ্রমী খেলোয়াড়; তিনি কোনো দ্বিধা ছাড়াই মুশফিকের নাম বলেন আর তার পরের নামটি বলেন তামিম ইকবালের।

এবারের বিশ্বকাপে সাকিবের পর সবচেয়ে সফল ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম। উইকেটরক্ষকের দায়িত্ব পালনের সাথে ব্যাট হাতে করেছেন দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৩৬৭ রান। শুধু তাই নয় ২০১৫ বিশ্বকাপেও বাংলাদেশ দলের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারী ছিলেন তিনি।

সম্প্রতি ক্রিকবাজকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মুশফিক প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন ২০২৩ বিশ্বকাপ খেলার। তবে একবারে তিনি ২৩ বিশ্বকাপ নিয়ে না ভেবে ভাবতে চান সিরিজ বাই সিরিজ। ভালো করতে চান প্রত্যেক সিরিজে আর ধরে রাখতে চান নিজের ফিটনেসও। তাই তো জীমে সবচেয়ে বেশি সময় দেন মুশফিকুর রহিম।

মুশফিক ক্রিকবাজকে ২০২৩ বিশ্বকাপ খেলা প্রসঙ্গে বলেন, “অবশ্যই আমার একটি বড় পরিকল্পনা রয়েছে, কিন্তু আমি চিন্তা করছি সিরজ বাই সিরিজ, আর সেভাবেই নিজেকে প্রস্তুত করছি। সিরিজ বাই সিরিজ পরিকল্পনা করলে ফর্ম ধরে রাখতে সুবিধা হয়। যদি লম্বা চিন্তাভাবনা করা হয় তাহলে ধারাবাহিকতা ধরে রাখা খুব কঠিন হবে। আমাদের চিন্তা করা উচিত স্লট বাই স্লট কিন্তু দিন শেষে দেখা যায় তা অনেক দূরে। কিন্তু আমার লক্ষ্য হলো ২০২৩ বিশ্বকাপ খেলা।”

কিছুদিন ব্যাটিং পজিশন তিন নম্বরে ও পাঁচ নম্বরে করলেও এখন চার নম্বর ব্যাটিং পজিশনের ধারাবাহিক পারফর্মার মুশফিকুর রহিম। এ নিয়ে তিনি বলেন, “বর্তমান সময়ে যদি আপনি চারে ব্যাট করা ব্যাটসম্যানদের দিকে তাকান তাহলে দেখবেন আমিই দ্বিতীয় সেরা ব্যাটসম্যান রস টেইলরের পরে।এটা অবশ্যই আমার জন্য অনেক সন্তুষ্টির বিষয় এবং আমাকে অনুপ্রেরণা যোগাবে জয়ের জন্য কঠিন অনুশীলন ও বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে। আমি এ পর্যন্ত যা করেছি এ নিয়ে খুশি তবে যতটা চেয়েছি ততটা না হ্যাঁ যদিও আমি কিছু ম্যাচ জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছি।”

যদি ২০২৩ বিশ্বকাপে মুশফিকুর রহিম তার ফর্ম ও ফিটনেস ধরে রেখে সেরাটা দিতে পারেন আর তার সাথে নতুনরা পরিপক্ব হয়ে উঠে সেটা বিশ্বকাপে ভালো করতে বাংলাদেশ দলের জন্য অনেক বড় ভূমিকা রাখবে।

সূত্রঃ ক্রিকবাজ

মন্তব্য: