২৮ মে তারিখ পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে বিশ্বকাপ আসরের প্রস্তুতি ম্যাচ। এর ১ দিন বিরতি দিয়েই পর্দা উঠছে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলস বিশ্বকাপ দ্বাদশ আসরের। প্রায় দেড় মাস ব্যাপি এই ক্রিকেট যুদ্ধে একটি শিরোপার জন্য লড়াই করবে ১০ দেশ।

এদিকে বিশ্বকাপ মানেই আলাদা উত্তেজনা। চার বছর পর পর যেহেতু বিশ্বকাপ মাঠে গড়ায় তাই এই আসরের যে কোনো রকমের পরিসংখ্যানই আলাদা হয়। চলুন আজ দেখে নিই পূর্বে বিশ্বকাপের ১১টি আসরে সেরা রান সংগ্রাহকদের তালিকা:

১৯৭৫ বিশ্বকাপ- ক্রিকেট বিশ্বকাপের প্রথম আসরে ইংল্যান্ডের মাটিতে ৪ ম্যাচ খেলে সর্বাধিক ৩৩৩ রান হাঁকিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের ডান হাতি ব্যাটসম্যান গ্লেন টার্নার৷ ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে সেবার সেমিফাইনাল হেরে বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিয়েছিল নিউজিল্যান্ড৷

১৯৭৯ বিশ্বকাপ– ক্রিকেট বিশ্বকাপের দ্বিতীয় আসরে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ রান হাঁকান ওয়েস্ট ইন্ডিজের গর্ডন গ্রীনিজ৷ তাঁর ব্যাট থেকে এসেছিল ২৫৩ রান৷

১৯৮৩ বিশ্বকাপ- ইংল্যান্ডের হয়ে ৮৩ বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি রান হাঁকিয়েছিলেন ডেভিড গাওয়ার৷ ইংল্যান্ডের বাঁ-হাতি এই ব্যাটসম্যান ৩৮৪ রান হাঁকিয়েছিলেন৷

১৯৮৭ বিশ্বকাপ- ইংল্যান্ডের হয়ে ১৯৮৭ বিশ্বকাপে টুর্নামেন্টের সর্বাধিক ৪৭১ রান হাঁকিয়েছিলেন গ্রাহাম গুচ৷

১৯৯২ বিশ্বকাপ- এই বিশ্বকাপে নিউজিল্যান্ডের হয়ে সর্বাধিক ৪৫১ রান হাঁকিয়েছিলেন মার্টিন ক্রো৷

১৯৯৬ বিশ্বকাপ- ৫২৩ রান হাঁকিয়ে টুর্নামেন্টের সর্বাধিক রান হাঁকিয়েছিলেন শচীন রমেশ টেন্ডুলকার৷

১৯৯৯ বিশ্বকাপ- টুর্নামেন্টের সর্বাধিক রান হাঁকিয়েছিলেন রাহুল দ্রাবিড়৷ ব্যাট হাতে ৪৬১ রান হাঁকান দ্রাবিড়

২০০৩ বিশ্বকাপ- দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে ২০০৩ বিশ্বকাপে ৬৭৩ রান হাঁকিয়েছিলেন শচীন রমেশ টেন্ডুলকার৷

২০০৭ বিশ্বকাপ- অস্ট্রেলিয়ার জার্সিতে টুর্নামেন্টের সর্বাধিক ৬৫৯ রান হাঁকিয়েছিলেন বাঁ-হাতি ক্রিকেটার ম্যাথু হেইডেন৷

২০১১ বিশ্বকাপ-টুর্নামেন্টে সর্বাধিক রান এসেছিল শ্রীলঙ্কার দিলশানের ব্যাট থেকে৷ টুর্নামেন্টে সমানে সমানে ৫০০ রান হাঁকিয়েছিলেন দিলশান৷

২০১৫ বিশ্বকাপ- টুর্নামেন্টের সর্বাধিক রান হাঁকিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের মার্টিন গুপটিল৷ ৫৪৭ রান হাঁকিয়েছিলেন কিউইদের ডানহাতি এই ওপেনার৷

মন্তব্য: