হঠাৎই প্রতিবাদে মুখর হয়ে উঠেছে বাংলাদেশের ক্রিকেট অঙ্গন। বেতন-ভাতা সহ বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে আজ দুপুরে মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন সাকিব–তামিম–মুশফিকরা। নিজেদের ১১ দফা দাবি–দাওয়া পেশ করে শেষ পর্যন্ত ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন ক্রিকেটারা। জানিয়েছেন তাদের দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত সব ধরনের ক্রিকেটীয় কার্যক্রম বন্ধ রাখবেন তারা। ক্রিকেটারদের হঠাৎ এমন সিদ্ধান্তে চরম অনিশ্চয়তায় পড়ে গেল ভারতের বিপক্ষে আসন্ন সিরিজ।

পারিশ্রমিক ইস্যুতে সাকিব আল হাসানের নেতৃত্বে তামিম ইকবাল, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহীমরা আজ পোনে তিনটায় মিরপুরে একাডেমি ভবনের সামনে জমায়েত হন।

এখানেই মিডিয়ার সামনে নিজেদের বক্তব্য তুলে ধরেন সাকিব আল হাসান। সেখানে ক্রিকেটাররা ১১ দফা দাবি তুলে ধরেন এবং জানিয়ে দেন দাবি না মানা পর্যন্ত সব ধরনের ক্রিকেটকে তারা বর্জন করবেন।

১১ দফা দাবি নিয়ে এই আন্দোলনে উপস্থিত হয়েছেন সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহসহ দেশের শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটাররা। তবে মাশরাফি বিন মর্তুজা যোগ দেননি।

মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘গত কয়েক বছর ধরে জানেন প্রিমিয়ার লিগের পরিস্থিতি কি। এটা নিয়ে কম বেশি সবাই অসন্তুষ্ট। এখানে পারিশ্রমিকের একটা মানদণ্ড বেঁধে দেয়া হয়েছে। খেলোয়াড়দের অনেক লিমিটেশন দেয়া হয়েছে। আগে যেমন ছিল, তেমনটা নেই। খেলোয়াড়রা আগে বাছাই করতে পারতো, কোন দলে খেলবে, পারিশ্রমিক কেমন হবে। আমাদের দাবি হলো আগের মতো যেন প্রিমিয়ার লিগটা ফিরে পাই।’

এ আন্দোলনের বিষয়ে জাতীয় দলের টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান বলেন, ‘এই ধর্মঘটে জাতীয় দল, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারসহ সবাই এই ধর্মঘটের অন্তর্ভূক্ত, এবং সেটা আজকে থেকে। জাতীয় লিগ থেকে শুরু করে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট বলেন, জাতীয় দলের প্রস্তুতি বলেন, আন্তর্জাতিক ক্রিকেট বলেন সবগুলোই এর অন্তর্ভূক্ত।’

তিনি আরও বলেন, ‘আলোচনা সাপেক্ষেই অবশ্যই সবকিছুর সমাধান হবে। দাবিগুলো যখন মানা হবে তখন আমরা আমাদের স্বাভাবিক কার্যক্রমে ফিরে যাবো।’

টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব সাফ জানিয়ে দিয়েছেন দাবি দাওয়া না মানলে মাঠে নামছেন না ক্রিকেটাররা। আর তাতেই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের আসন্ন সব কার্যক্রম। যার মধ্যে সবার আগে রয়েছে ২৪ অক্টোবর শুরু হতে যাওয়া এনসিএলের তৃতীয় রাউন্ড, ২৫ অক্টোবর থেকে হতে যাওয়া ভারত সফরের প্রস্তুতি ক্যাম্প। এবং, নভেম্বরের শুরুতেই তিনটি টি-টোয়েন্টি ও দুইটি টেস্ট খেলতে ভারত সফরে যাওয়াও এখন অনিশ্চয়তার মুখে।

মন্তব্য: