গেল ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে আবাহনীকে চ্যাম্পিয়ন করছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। তবে এই আসর শেষ হওয়ার আগেই শুরু হয়েছে বিশ্বকাপের অনুশীলন ক্যাম্প। তবে খেলার বাড়তি ধকল কাটাতে চলমান জাতীয় দলের ক্যাম্প থেকে দিনের বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে বিশ্বকাপ স্কোয়াডে জায়গা পাওয়া ক্রিকেটারদের।

তবে বিশ্রামে সময়ে মাশরাফি ছুটে গেছেন তার নিজের এলাকা নড়াইল-২ আসনে। পরিবার নয়, নিজের এলাকার উন্নয়নকাজের তদারকিতে সেখানে গেছেন বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক।

নড়াইলে নানা মুখী উন্নয়ন মূলক কাজে শুরু করেছেন মাশরাফি। যেগুলোর মধ্যে নড়াইল সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ কর্নার, সততা স্টোর, ডিজিটাল হাজিরা শুভ উদ্বোধন করেছেন মাশরাফি। এছাড়া ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নাকসী মাদ্রাসা বাজারের মসজিদের কাজেরও উদ্বোধন করেন তিনি। পাশাপাশি দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষা হোস্টেলের উদ্বোধনও করেন মাশরাফি।

এ সময় নড়াইল জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে জেলাপর্যায়ের কর্মকর্তা ও সুধীজনের সঙ্গে মতবিনিময় করেন মাশরাফি। ওই সময় তিনি বলেন, নড়াইলের উন্নয়নে মাস্টার প্ল্যান করেছি। আমরা একটি পরিকল্পিত মডেল জেলা গড়তে চাই। ইতিমধ্যে কাজ শুরু করেছি। পৌরসভার উন্নয়নে পাঁচ কোটি ৩০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন নদীতীরবর্তী এলাকায় ভাঙনরোধে কাজ করে চলেছি।

সবশেষ জাতীয় নির্বাচনে নড়াইল-২ আসন থেকে আওয়ামী লিগের ব্যানারে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন মাশরাফি। এক সরকারি কর্মকর্তা তাকে জানান, উন্নয়নের লক্ষ্যে উচ্ছেদ অভিযানে অনেকে অবৈধ স্থাপনা ভাঙতে বাধা দিচ্ছেন। জবাবে সাংসদ বলেন, ভাঙা বন্ধ করতে আমি কি আপনাকে একবারও ফোন দিয়েছি? তা হলে আপনি ভাঙলেন না কেন? আমিও ওই রাস্তার ওপর বসবাস করি। ওইখানে আমার নানাবাড়ি। দরকার হলে সেটি সবার আগে ভাঙবেন।

এদিকে আগামী ২৮ এপ্রিল পর্যন্ত নড়াইলে থাকবেন মাশরাফি। এর পর জাতীয় দলের ক্যাম্পে যোগ দিতে ঢাকায় ফিরবেন তিনি।

মন্তব্য: