আইপিএলে ফের আম্পায়ারিং বিতর্ক৷ আরও একবার নো-বল ইস্যুতে উত্তাল আইপিএলের ক্রিকেটমহল৷ বৃহস্পতিবার চেন্নাই ও রাজস্থানের মধ্যকার ম্যাচে আম্পায়ারের বাজে সিদ্ধান্তে শিকার হয় ধোনির দল। এ সময় উত্যাক্ত অবস্থায় মাঠে প্রবেশ করে আম্পায়ের সঙ্গে তর্ক জুড়ে দেন তিনি।

শেষ ওভার জয়ের জন্য চেন্নাইয়ের প্রয়োজন ছিল ১৮ রান। ধোনির জন্য মঞ্চ প্রস্তুত ছিল। কিন্তু ওভারের তৃতীয় বলে ধোনির স্টাম্প উড়িয়ে দিলেন বেন স্টোক্স। তাই শেষ তিন বলে সেই অঙ্ক দাঁড়ায় প্রয়োজন আট রান৷

স্টোক্সের করা চতুর্থ বল নিয়ে শুরু হয় বিতর্ক। মিচেল স্যান্টনারকে করা বেন স্টোক্সের একটি বল কোমর বরাবর করেন। এ সময় মূল আম্পায়ার উল্লাস গান্ধে হাত বাড়িয়ে জানিয়ে দেন এটি উচ্চতার কারণে নো বল। কিন্তু লেগ আম্পায়ার ব্রুস অক্সেনফোর্ড আবার তাকে থামিয়ে বলেন এটি নো বল নয়।

তবে রিপ্লেতেও যায় বলটি কোমড়ের উপর ছিল। জাদেজা এবং স্যান্টনার প্রথম থেকেই নো-বলের দাবি জানালেও আম্পায়াররা কানে দেননি। তখনই দেখা গেল রাগত ধোনিকে। তিনি মাথা গরম করে যে ভাবে মাঠের মধ্যে চলে আসেন, সেটা আগে কখনও দেখা যায়নি।

প্রথমেই এগিয়ে যান লেগ আম্পায়ার অক্সেনফোর্ডের দিকে। সেখানে আসেন মূল আম্পায়ার গান্ধেও। তাকে দেখিয়ে ধোনি বলতে থাকেন, মূল আম্পায়ার নো বল ডেকেছে, মূল আম্পায়ার নো বল ডেকেছে। কিন্তু এতে সাড়া দেননি অক্সেনফোর্ড। তিনি অটল থাকেন নিজের সিদ্ধান্তে।

বেশ কয়েকবারের চেষ্টায় ধোনিকে বোঝাতে থাকেন এটি নো বল হয়নি। তখন বোলার বেন স্টোকসও সামনে চলে এলে ছোটখাটো এক বাকবিতণ্ডার সৃষ্টি হয়। আম্পায়াররা বারবার ধোনিকে বোঝালেও অসন্তুষ্টই দেখা যায় ধোনিকে। সিদ্ধান্তেও কোনো বদল আসেনি। ফলে রাগে গজরাতে গজরাতে মাঠ ছেড়ে যান ধোনি।

শেস দুই বলে ৬ রান প্রয়োজন ছিল চেন্নাইয়ের। পঞ্চম বলে দুই রান নেন স্যান্টার। এরপর নো বল করলেন শেষ বলে চেন্নাইয়ের তিন রান প্রয়োজন ছিল। এ সময় ছয় মেরে রাজস্থানের আশায় জল ঢালেন চেন্নাইয়ের মিচেল স্ট্যানার। চার উইকেটে ম্যাচ জিতে নিল ধোনি ব্রিগেড।

মন্তব্য: