আন্তর্জাতিক পর্যায়ে শুটারদের সাফল্য খুব বেশি নেই। হাতে গোনা কয়েকটি সাফল্যের একটি এসেছিল নাসির উদ্দিন জনির হাত ধরে। ১৫ এপ্রিল সোমবার সকালে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় হৃদ্‌রোগে আক্রান্ত হয়ে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি। মৃত্যু কালে তার বয়স হয়েছিল ৫২ বছর।

দক্ষিণ এশিয়ার গেমসে তিনটি সোনা জয়ী শুটার নাসির উদ্দিন জনি উঠে আসেন চট্টগ্রাম থেকে। ১৯৯৯ সালে বাংলাদেশ শুটিং দলের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টায় গিয়েছিলেন বিশ্বকাপ শুটিংয়ে।সেই থেকে তাঁর বসতি ছিল যুক্তরাষ্ট্রে। বিয়ে করেন আরেক শুটার শারমিন রহমান সাগরকে। দেশে মাঝেমধ্যে আসতেন। তবে শুটিংয়ের সঙ্গে সেভাবে আর যোগাযোগ ছিল না। অথচ এই শুটিংই তাঁকে এনে দিয়েছিল পরিচিতি। পদক জিতেছেন সাফ শুটিংয়ে। তবে চট্টগ্রাম থেকে উঠে আসা জনিকে মনে রাখতে হবে সাফ গেমসের সাফল্যের জন্য।

১৯৯৩ ঢাকা সাফ গেমসে (এখন নাম এসএ গেমস) ৫০ মিটার এয়ার রাইফেল থ্রি পজিশনে দলীয় সোনা জেতেন জনি। বাকি দুই সঙ্গী ছিলেন জিম এ হায়দার ও কামরুল ইসলাম। এরপর ১৯৯৫ সালে মাদ্রাজ সাফ গেমসে দেখা গিয়েছিল জনি-ঝলক। দুটি সোনা জেতেন সেই গেমসে। যার একটি ব্যক্তিগত, ৫০ মিটার এয়ার রাইফেল প্রোনে। অন্যটি ৫০ মিটার থ্রি পজিশনে দলীয় বিভাগে। যেখানে তাঁর সঙ্গী ছিলেন জিম হায়দার ও সাইফুল আলম চৌধুরী রিংকি।

মন্তব্য: