বাংলাদেশ ক্রিকেটের সবচাইতে বড় শক্তি এখন সাকিব আল হাসান। যেকোনো সময় যেকোনো কিছু করে ফেলার সামর্থ রাখেন তিনি। খেলার মাঠে প্রতিপক্ষের সবথেকে বড় ভয়টি থাকে সাকিবকে নিয়ে। তবে হঠাৎ করে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে নিয়ম রক্ষার ম্যাচে ইনজুরির শিকার হওয়ায় অনেকটা দুঃচিন্তার সাগরে ভাসছেন টাইগার দলের অধিনায়ক মাশরাফি।

তাই খেলার ব্যাপারটি টিম ম্যানেজমেন্ট পুরোপুরি ছেড়ে দিয়েছেন সাকিবের উপরেই। যদি সে না খেলে তবে তার বিকল্প হিসেবেও চিন্তা করে রেখেছেন তারা। আর যদি সাকিব চোটটিকে অতটা প্রাধান্য না দেন তবে হয়তো উইন্ডিজ বধে নামার সম্ভবনা থাকতে পারে।

তবে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাশরাফি সাকিব না থাকলেও সাকিবের বিকল্প তৈরী করে রেখেছেন। কিন্তু, কে সেই বিকল্প মাশরাফি না জানালেও বলেছেন, সাকিবকে ছাড়াও ম্যাচ জেতার যথেষ্ট সামর্থ আছে তার দলের।

মাশরাফি বলেন, ‘যদি ও না খেলে, তাহলে সেটি মোটেও ভালো সংবাদ নয়। তবে ওর বিকল্প প্রস্তুত আছে। আবার এটাও বলব, সাকিবকে ছাড়াও ম্যাচ জেতার সামর্থ্য আমাদের অবশ্যই আছে। এ কারণেই দলে সেরা ১৫ জনকে নেওয়া।’

তবে মাশরাফিসহ সবারই প্রত্যাশা, ফিট হয়ে উঠে গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে সাকিব শতকষ্টের মাঝেও মাঠে উপস্থিত থাকবেন। আর তাই সবাই মনে করেন সাকিবের উপস্থিতি মাঠের সবাইকে এনে দিতে পারে নতুন উদ্যমতা, যা ম্যাচ জেতার ক্ষেত্রে এক জাদুকরী টনিকের মতো কাজ করবে।

সাকিবের গুরুত্ব প্রকাশ করে তাই মাশরাফির ভাষ্য, ‘অধিনায়ক হিসেবে বলব না। সাকিব কতটা গুরুত্বপূর্ণ সেটা আমি না বললেও চলে। বাংলাদেশের ক্রিকেটে সাকিব কী, সবাই জানে। ওর বদলে যে আসবে সে পেশাদার এবং তারও সামর্থ্য আছে পারফর্ম করার।’

একাদশে সাকিব না থাকলেও টিম ম্যানেজমেন্টকে অবশ্য ডুবতে হবে চিন্তার সাগরে। লিটন দাস, আবু জায়েদ রাহী, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, রুবেল হোসেন- একটি জায়গার জন্য যে লড়তে হবে অনেককেই!

মন্তব্য: