২৩ এপ্রিল থেকে মাঠে গড়াচ্ছে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের দ্বাদশ আসর। গেল বারের মতো এই আসরেও সানরাইজার্স হায়দরাবদের হয়ে মাঠে নামবেন সাকিব আল হাসান। এই মুহূর্তে আইপিএলে অংশ নেওয়া আটটি দল শেষ সময়ের অনুশীলনে ব্যস্ত সময় পার করলেও এখনো দেশেই আছেন সাকিব আল হাসান।

গেল আইপিএল আসরে সানরাইজার্স হায়দরাবাদ দল ছাড়া বাকি সাতটি দলের অধিনায়ক ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররাই। চলতি আসরেও দেখা গেছে সেই ধারাবাহিকতাই। চলুন পরিচিত হই আইপিএল দ্বাদশ আসরের আট অধিনায়কের সঙ্গে।

মহেন্দ্র সিং ধোনি (সিএসকে): গত বছর দুই বছরের নির্বাসন কাটিয়ে সিএসকে আইপিএলে ফিরতেই তাদের চ্যাম্পিয়ন করেছিলেন ক্যাপ্টেন কুল। এবার দলের জন্য এবং বিশ্বকাপের ব্যক্তিগত প্রস্তুতির লক্ষ্য়েই তিনি ব্যাট হাতে ভালো কিছু করে দেখাতে চাইবেন।

বিরাট কোহলি (আরসিবি): ভারতীয় দলের জন্য যতটা সফল অধিনায়ক বিরাট, আরসিবির জন্য ততটা নন। ২০১৬-তে দলকে ফাইনালে তুললেও ট্রফির মুখ দেখাতে পারেননি একবারও। টুর্নামেন্ট শুরুর আগে তিনি বলেছেন কিছু ভুল সিদ্ধান্তই তার জন্য দায়ী।

রোহিত শর্মা (মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স): ধোনি ছাড়া আইপিএল-এ একমাত্র রোহিতই তিনবার ট্রফি জিতেছেন – ২০১৩, ২০১৫, ২০১৭। রোহিত অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ওডিআই সিরিজে স্বাভাবিক ফর্মে ছিলেন না। তাই বিশ্বকাপের আগে আইপিএলটা স্মরণীয় রেখে প্রস্তুতি সারতে চাইবেন।

দীনেশ কার্তিক (কলকাতা নাইট রাইডার্স): ২০১২ ও ২০১৪ সালে গৌতম গম্ভীর কেকেআরকে ট্রফি দেওয়ার পর, গত বছর এই উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যানের হাতে নেতৃত্বের দায়িত্ব তুলে দিয়েছিল কেকেআর। দুর্বল দল নিয়েও তিনি দলকে প্রথম তিনে তুলেছিলেন। এবার কেকেআর-কে কাপ জেতানোর পাশাপাশি বিশ্বকাপের আগে নিজের কদর বোঝাতেও সচেষ্ট থাকবেন তিনি কার্তিক।

শ্রেয়স আইয়ার (দিল্লি ক্যাপিটালস): গত আইপিএল-এ প্রথম ৫ ম্যাচের পর খারাপ ফর্মের জন্য দিল্লির দলের প্রথম একাদশ থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন গৌতম গম্ভীর। বাকি টুর্নামেন্টে পরিবর্ত অধিনায়ক হিসেবে খারাপ করেননি শ্রেয়স আইয়ার। এই বছর পুরোপুরি দায়িত্বে তিনি। দলকে প্রথমবার ট্রফি জেতানোর পাশাপাশি ভারতের জাতীয় দলে ফাঁকা থাকা ‘নাম্বার ফোর’ জায়গার দিকে চোখ থাকবে আইয়ারের।

আজিঙ্কা রাহানে (রাজস্থান রয়্যালস): স্টিভ স্মিথ নির্বাসনে থাকায় গত বছর রয়্যালস-এর নেতৃত্বের দায়িত্ব পেয়েছিলেন আজিঙ্কা। ভারতে টেস্ট সহঅধিনায়ক দলকে প্লেঅফ অবধি নিয়ে যান। এই বছর স্মিথের পরামর্শ পাবেন তিনি। ভারতের বিশ্বকাপের দলে ঢোকার দাবি জোরালো করার বিষয়টাও থাকবে তাঁর মাথায়।

কেইন উইলিয়ামসন (সানরাইজার্স হায়দরাবাদ): রাহানের মতো কিউই অধিনায়ক গত বছর নির্বাসিত ডেভিড ওয়ার্নারের বদলে দলের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। সানরাইজার্সকে তিনি একেবারে চুড়ান্ত মোকাবিলা অবধি নিয়ে গেলেও, ধোনির বিরুদ্ধে পরাস্ত হন। তবে ব্যাট হাতে কিন্তু মৌসুমটা ভাল গিয়েছিল তার।

রবিচন্দ্ন অশ্বিন (কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব): গত মৌসুমে পাঞ্জাবের ফ্র্যাঞ্চাইজির অধিনায়ক হন ভারতের এই অফ স্পিনার। শুরুটা ভাল করেও টুর্নামেন্টের মাঝামাঝি ছন্দ হারিয়েছিল তার দল। তারপরেও তার উপরই এবারও আস্থা রেখেছে পাঞ্জাব।

মন্তব্য: