গেল বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের প্রথম দিকে দেশীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে নজর কেড়েছিলেন ঢাকা ডায়নামাইটের হয়ে খেলা ডান হাতি অফ স্পিনার অ্যালিস আল ইসলাম। বিপিএলে তার অভিষেক ম্যাচে রংপুরের বিপক্ষে তুলে নিয়েছিলেন হ্যাটট্রিক। এতেই অভিষেক ম্যাচে হ্যাটট্রিক করে বিশ্বরেকর্ড গড়ে সবার নজরে চলে এসেছিলেন অ্যালিস।

তবে তার সেই সুখ বেশি সময় স্থায়ী হয়নি। ম্যাচের পরেই তার বোলিং নিয়ে অভিযোগ জানিয়েছিলেন রংপুর রাইডার্সের অধিনায়ক মাশরাফি থেকে শুরু করে অনেকেই। এমনকি আম্পায়ার তার সব ধরনের বোলিং অ্যাকশনেই ক্রটি আছে বলে জানিয়েছিলেন। তার ভিত্তিতে অ্যালিসকে ১৫ দিনের মধ্যে বোলিং পরীক্ষায় সময় বেধে দিয়েছিল। তবে এক ম্যাচ পরেই ইনজুরিতে পড়ে পিছিয়ে যায় বোলিং পরীক্ষা।

অ্যালিস ছাড়াও সন্দেহজনক অ্যাকশনের জন্য অভিযুক্ত হয়েছিলেন রংপুর রাইডার্সের ডানহাতি অফস্পিনার নাহিদুল ইসলাম এবং কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ডানহাতি অফস্পিনার সঞ্জীত সাহা। এই তিন স্পিনারের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের ভিত্তিতে বোলিং অ্যাকশনে ক্রটি খুঁজে পেয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।

তাই অ্যাকশন রিভিউ কমিটির কাছে পরীক্ষা দিয়ে বোলিং অ্যাকশন শোধরানোর আগে এই তিন বোলার বোলিং করতে পারবেন না বলে জানিয়েছে বিসিবি।

মন্তব্য: